‘দিল্লীতে গিয়ে নাটক করছেন মুখ্যমন্ত্রী’, নবান্ন থেকে তোপ শুভেন্দুর।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লিতে উপস্থিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাবেন, আর তার আগেই আচমকা নবান্নে মুখ্যসচিবের সঙ্গে ঝটিকা সাক্ষাৎকারে হাজির হয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দিল্লী সফরকে নাটক বলে তোপ দাগেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী ৷

বুধবার বেলাতে বিজেপি বিধায়কদের সঙ্গে নিয়ে আচমকাই নবান্নে আসেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। সেখানে তিনি রাজ্যের  মুখ্যসচিবের দেখা করেন। নবান্ন থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শুভেন্দু স্পষ্ট বুঝিয়ে দেন যতই মমতা দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর দরবার করতে যান, রাজ্যে বিজেপি এক ইঞ্চিও জায়গা ছাড়বে না তৃণমূলকে ৷

বুধবার সকালে রাজ্য বিধানসভায় কাজ মিটিয়ে৷ দলীয় বিধায়কদের সঙ্গে নিয়ে সরাসরি শুভেন্দু নবান্নে আসেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়ক শংকর ঘোষ, চন্দনা বাউরী ও বিশাল লামা। আচমকা এইভাবে  শুভেন্দু নবান্নে আসাতে নবান্নের নিরাপত্তারক্ষীরাও যথেষ্ট অপ্রস্তুত অবস্থার মধ্যে পড়ে। কর্তব্যরত নিরাপত্তা রক্ষীদের এড়িয়ে শুভেন্দু ভিজিটরস রুমে পৌঁছে কিছুক্ষণ সেখানে অপেক্ষা করার পর তারা মুখ্যসচিবের সঙ্গে দেখা করেন৷

এরপর নবান্ন থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “নবান্নে ১৪৪ ধারা জারি আছে । তাই চারজন বিধায়ককে নিয়ে এখানে এসেছিলাম । মুখ্যসচিবকে ফোন করেছিলাম দেখা করতে চাই বলে। উনারা দেখছি, বলছি করছিলেন ৷ আমরা আর অপেক্ষা করিনি ।” শুভেন্দু অধিকারী আরও বলেন, “দিল্লিতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর কাছে রাজ্যের আর্থিক বঞ্চনার কথা বলছেন । আর এখানে জনগণকে বঞ্চিত করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।”  শুভেন্দু আরও বলেন, “মুখ্যসচিবের মাধ্যমে সরকারকে আজ বার্তা দেওয়া হল ৷ পশ্চিমবঙ্গে বিরোধী দলকে ভোট দিলে ঘরছাড়া হতে হয়, পঞ্চায়েত ভোট লুট হয় । আবাস, নলবাহিত জল, বার্ধক্য ভাতা দেওয়া হয় না । একজন সাংসদ বলেন, আমি ৭০ হাজার বার্ধক্য ভাতা দেব । এই সরকার আসলে ফর দ্য পাটি, অফ দ্য পার্টি ও বাই দ্য পার্টি । ফর দ্য ফ্যামিলি, বাই দ্য ফ্যামিলি, অফ দ্য ফ্যামিলি চলছে । দুর্নীতিগ্রস্ত সরকার এটা । এই সরকারকে কেন্দ্রীয় সরকার কত টাকা দিয়েছে । টাকা কীভাবে নষ্ট হয়েছে, তার তালিকা এখানে আমরা দিয়েছি । সাম্প্রতিক অতীতের কার্শিয়াং, শিলিগুড়িতে বানারহাটে মুখ্যমন্ত্রী যে প্রশাসনিক ডিস্ট্রিবিউশন করেছেন, সেখানে বিরোধী এমএলএ-দের তিনি ডাকেননি । এইভাবে বিরোধীদের বঞ্চনা আসলে জনগণের বঞ্চনা নবান্নে এসে আজ আমরা বলে গেলাম, লড়াই হবে। এক ইঞ্চিও জায়গা আপনাকে আমরা ছাড়ব না। আপনাকে তাড়া করে বেড়াব আমরা। আপনি দিল্লিতে গিয়ে নাটক করে, ভাবছেন ছাড় পেয়ে যাবেন। এমনটা হবে না।”

বুধবার শুভেন্দুর ঝটিকা সফর ঘিরে মুখ্যমন্ত্রী দিল্লিতে থাকায় নবান্নের নিরাপত্তাও ছিল কিছুটা ঢিলেঢালা ছিল, সেই ছবিও স্পষ্ট হয়ে যায়। এভাবে  কাউকে কিছু না জানিয়ে বিজেপিতে যোগদানের পর প্রথমবার রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী যে নবান্নে আসতে পারেন এমনটা কেউ কল্পনাও করতে পারেন নি।
এছাড়াও লক্ষ কণ্ঠে গীতাপাঠ কর্মসূচিতে থাকছেন না প্রধানমন্ত্রী, তাও জানিয়ে দেন শুভেন্দু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *