কপালে ব্যান্ডেজ নিয়েই গার্ডেনরিচে মমতা, গেলেন হাসপাতালেও, ঘোষণা আর্থিক ক্ষতিপূরণের

মাঝরাতে গার্ডেনরিচের নির্মীয়মাণ বহুতল ভেঙে পড়ার খবর পেয়েই সোমবার সকালে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  গার্ডেনরিচের ঘটনায় এখনও পর্যন্ত দু’জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে।

এদিন সকালে দেখা গেল মাথায় ব্যান্ডেজ নিয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান মমতা। গাড়ি থেকে নেমে সরু গলি দিয়ে বেশ খানিকটা হেঁটে ঘটনাস্থলে যান তিনি। গার্ডেনরিচে ছিলেন কলকাতা দক্ষিণ কেন্দ্রের সাংসদ মালা রায়ও। ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার বিনীত গয়াল।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর মমতা বলেন, ‘এটা খুব ঘিঞ্জি এলাকা। মন্ত্রীরা সারা রাত এখানে ছিলেন। প্রোমোটারদের একাংশ বেআইনি ভাবে বাড়ি তৈরি করেন। তার আগে ভাবা দরকার, আশপাশে যাঁরা আছেন, তাঁদের যাতে ক্ষতি না হয়। আমি শুনলাম, প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে এই বহুতলটি তৈরি করা হয়নি। এখন রমজান মাস চলছে। সকলে উপোস করে থাকেন। তা-ও সারা রাত এলাকার মানুষ উদ্ধারকাজে হাত লাগিয়েছেন। স্বাস্থ্য দপ্তর, দমকল, পুলিশ, কাউন্সিলররা সারা রাত ধরে কাজ করেছেন।’

মমতা আরও বলেন, ‘আমরা মর্মাহত। দু’জন মারা গিয়েছেন। পাঁচ-ছ’জন এখনও আটকে। এক জনের পা আটকে। তবে তিনি বেঁচে আছেন। উদ্ধারকারীদের ভিতরে ঢুকতে সময় লেগেছে। এখন সকলে ঢুকে গিয়েছেন। শোকস্তব্ধ পরিবারের কাছে আমি দুঃখপ্রকাশ করছি। যাঁরা বেআইনি কাজ করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা হবে। পরিবারের পাশে সরকার দাঁড়াবে। যাঁদের বাড়ি ভেঙেছে, তৈরি করে দিতে বলব।’ মৃতদের পরিবারকে এবং আহতদের আমরা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথাও এক্স হ্যান্ডলে ঘোষণা করেছেন মমতা।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর হাসপাতালেও যান মমতা। সেখান থেকে বেরিয়ে বলেন, ‘হাসপাতালে যাঁরা আছেন, তাঁরা স্থিতিশীল।’ মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে হাসপাতালে গিয়েছিলেন মন্ত্রী সুজিত বসুও।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *