নাচ-গান-কবিতায় রবি-স্মরণ, কবিকে শ্রদ্ধা বঙ্গবাসীর

বিশ্বকবির জন্মদিনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নাচে, গানে স্মরণ করল জোড়াসাঁকো থেকে শান্তিনিকেতন। গানে-গল্পে-কবিতায় বিশ্বকবিকে স্মরণ ও শ্রদ্ধা জানাল আপামর বাঙালি। জোড়াসাঁকো থেকে শুরু করে শান্তিনিকেতনে সাড়ম্বরে উদযাপন করা হয়েছে পঁচিশে বৈশাখ। করোনার জেরে দু’বছর রবীন্দ্র জয়ন্তী পালন করা সম্ভব হয়নি। সেই বিষাদ কাটিয়ে এদিন সকাল থেকেই কবি-উপাসনায় মেতে উঠেছে রাজ্যবাসী।

রবীন্দ্র জয়ন্তী উপলক্ষ্যে এদিন সেজে ওঠে জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়ি। সকাল ৬টা থেকেই শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। কবি প্রণাম সারতে এদিন ঠাকুরবাড়িতে আসেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। ঠাকুরের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেন তিনি।

এদিন ভোর ৫ টায় বৈতালিক, ৬ টায় রবীন্দ্রভবনে কবিকন্ঠ ও ৭ টায় উপাসনা গৃহে বৈদিক মন্ত্রপাঠ, ব্রহ্ম উপাসনা ও রবীন্দ্রসংগীতের মধ্য দিয়ে কবিগুরুর জন্মদিন পালন করা হয় শান্তিনিকেতনে। অনুষ্ঠানে ছিলেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী-সহ সমস্ত অধ্যাপক-অধ্যাপিকা, আধিকারিক ও পড়ুয়ারা৷ প্রতি বছরের মত এই দিনটিতে দিনভর নানান অনুষ্ঠান রয়েছে বিশ্বভারতীতে৷ শিলিগুড়িতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মূর্তিতে মাল্যদান করেছেন বিজেপির বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ, আন্দময় বর্মন ও শিখা চট্টোপাধ্যায়।

জন্মজয়ন্তীতে কবিগুরুকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার সকালে এক টুইট-বার্তায় মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মদিনে আমার পক্ষ থেকে তাঁকে বিনম্র শ্রদ্ধা। মহান কবির শিক্ষা, গান, কবিতা ও তাঁর সৃজনশীল ভাণ্ডার আমাদের পথ চলা সুগম করুক। তিনি আমাদের জীবনে ধ্রুবতারা হয়ে থাকুক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 4 =