ভবঘুরেকে সুস্থ করে হ্যাম রেডিওর সাহায্যে ফেরাল বাঁকুড়া মেডিক্যাল

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাঁকুড়া: হ্যাম রেডিওর সাহায্য নিয়ে এক ভবঘুরেকে তুলে দেওয়া হল তাঁর নিজের পরিবারের হাতে। অবশেষে ভবঘুরে ঠিকানা পাওয়ায় খুশি সব মহল।
মাস চারেক আগে বিহারের আরা জেলার বাসি¨া বছর পঁয়তাল্লিশের রামবাবু শাহ দিদির বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়েছিলেন। ভবঘুরের মতো এসে হাজির হন বাঁকুড়ার বড়জোড়ায়। সেখানেই পথ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে পুলিশের সাহায্যে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হন। সেখানে দীর্ঘ চিকিৎসায় সুস্থ হলেও কেউ তাঁকে নিয়ে যায়নি বলে দাবি।
সূত্রের খবর, বিহারের আরা জেলার জগদীশপুর থানার উগনা গ্রামে বাড়ি হলেও ওই জেলারই রঘুনাথপুর এলাকায় থাকা দিদির বাড়িতেই থাকতেন রামবাবু। সামান্য মানসিক সমস্যা থাকায় দিদি চোখে চোখেই রাখতেন ভাই রামবাবু শাহকে। কিন্তু মাস চারেক আগে হঠাৎই সেই দিদির বাড়ি থেকে কার্যত উধাও হয়ে যান তিনি। কোনও ভাবে তিনি চলে আসেন বাঁকুড়ার বড়জোড়ায়। সেখানে পথ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন তিনি। বড়জোড়া থানার পুলিশ গুরুতর আহত রামবাবু শাহকে ভর্তি করে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজে। সেখানেই দীর্ঘদিন চিকিৎসায় ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠেন রামবাবু শাহ। কিন্তু মানসিক সমস্যার কারণে চিকিৎসক ও চিকিৎসা কর্মীদের শত চেষ্টাতেও নিজের ঠিকানা বলতে পারেননি রামবাবু শাহ।
অন্যদিকে দিনের পর দিন রামবাবু শাহকে নেওয়ার জন্য কেউ হাসপাতালে না আসায় চিন্তায় পড়ে কর্তৃপক্ষ। যোগাযোগ করা হয় হ্যাম রেডিওর সঙ্গে। হ্যাম রেডিওর সহায়তায় অবশেষে মেলে রামবাবু শাহর বিহারের আরা জেলার ঠিকানা। সেখানে যোগাযোগ করার পর অবশেষে তাঁর ভাই ও দিদি বুধবার বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজে আসেন। হারানো ভাইকে এভাবে খুঁজে পেয়ে আপ্লুত রামবাবু শাহর দিদি ও ভাই। হাজারো প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও শেষ পর্যন্ত দীর্ঘদিন পরে এভাবে রামবাবু শাহকে নিজের পরিবারের হাতে তুলে দিতে পেরে খুশি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও পুলিশও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × three =