নানা মুদ্রা সংরক্ষণের নেশা মালদার প্রবীণ কেডিয়ার, প্রাচীন মুদ্রার কদর বোঝাতে প্রদর্শনী করার ইচ্ছা প্রবীণবাবুর!

দীর্ঘদিন ধরে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন ধরনের প্রাচীন মুদ্রা সংরক্ষণ করে বাড়িতে রীতিমতো ছোটখাটো মিউজিয়াম গড়ে তুলেছেন হরিশ্চন্দ্রপুরের এক ব্যক্তি প্রবীণ কেডিয়া। পেশায় চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট প্রবীণবাবুর বাড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর থানার রোড এলাকায়। সংরক্ষিত করা প্রাচীন মুদ্রা গুলির মধ্যে কি নেই।  মোঘল আমল থেকে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি সহ বিভিন্ন যুগের অবসান এবং সেইসব আমলের মুদ্রা সংরক্ষণ করে রেখেছেন প্রবীণবাবু। এমনকী বর্তমান যুগে এক হাজার টাকার কয়েন থেকে শুরু করে আরো নতুনত্ব কিছু কয়েন ও টাকা  তার সংরক্ষিত শালায় মজুত রয়েছে। প্রাচীন থেকে বর্তমান, সময়কে তিনি নিজের কাছে ধরে রেখেছেন মুদ্রা সংরক্ষণের মাধ্যমে।

শুধু দেশ, বিদেশের মুদ্রার ভাণ্ডারও রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। প্রবীণবাবু বলেন,  স্কুল জীবন থেকেই মুদ্রার সঙ্গে প্রেম তাঁর। ছোটতে বাবা আর আত্মীয়-স্বজনদের কাছ থেকে মুদ্রা সংগ্রহ করতাম। বন্ধুবান্ধবেরাও আমার কাছ থেকে ছাড় পেত না। পরবর্তী সময়ে হস্টেল জীবন শুরু হয়। তখন অনেককেই দেখতাম, বাইরে যেত। তাদের বলতাম, তোমরা বাইরে যাচ্ছ যাও। কিন্তু যেখানে যাচ্ছ, সেখান থেকে আমার জন্য মুদ্রা আর কারেন্সি নিয়ে এস। এভাবেই আমার সংগ্রহের ভাণ্ডার বেড়েছে। আর প্রাচীন ভারতীয় মুদ্রা মূলত সংগ্রহ করেছি রাজস্থান থেকে। সেখানে আমার পূর্বপুরুষের বাস। বাবা-জ্যাঠা, কিংবা আমি নিজেও যখন সেখানে যেতাম, প্রাচীন ভারতীয় মুদ্রা সংগ্রহ করে নিয়ে আসতাম। আমি চাই, আমার মতো এই নেশা ছোটদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ুক। তারাও জানুক, দেশের প্রাচীন মুদ্রার গুরুত্ব কতটা। সুযোগ পেলে আমি নিজের সংগ্রহ নিয়ে একটা প্রদর্শনী করতে ইচ্ছুক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × five =