জয়ন্তকে ছেড়ে দেওয়ার দাবিতে হুমকি ফোন সৌগতকে

জয়ন্ত সিংকে না ছাড়লে গুলি করে মারা হবে তৃণমূলের বর্ষীয়ান সাংসদ সৌগত রায়কে। এমনই হুমকি ফোন এসেছে সৌগতর কাছে, এমনটাই দাবি তৃণমূল সাংসদের। এই প্রসঙ্গে বলে রাখা শ্রেয়, জয়ন্তকে গ্রেফতারের পর প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর থেকে শুরু করে বিধায়ক মদন মিত্র কেউই বাদ যাননি হুমকি থেকে। ফলে জয়ন্ত সিংয়ের আতঙ্ক ঘিরে বসেছে সকলকে। তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ও দাবি করেন, মঙ্গলবার মধ্যরাতে হঠাৎই তাঁর কাছে ফোন আসে। জয়ন্তকে না ছাড়লে তাঁকে গুলি করে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। সাংসদ জানান, ‘আমি হুমকি ফোন পেয়েছিলাম। গত মঙ্গলবার রাত তিনটে নাগাদ একটি হুমকি ফোন আসে। জয়ন্ত সিং-কে না ছাড়ালে গুলি করে দেওয়া হবে। আমি যদি আড়িয়াদহে যাই গুলি করবে। তবে কামারহাটি গিয়েছিলাম কিছু হয়নি। আমি পুলিশ কমিশনারকে বলেছি। যাতে ওরা ট্রক করে। বলছে আমি প্রভাবশালী আমি জয়ন্তকে ছাড়াতে পারি। না ছাড়ালে গুলি করবে ।’
যদিও, এরপর থেকে ওই ফোন নম্বরে তিনি আর যোগাযোগ করতে পারেননি। তবে এখানেই প্রশ্ন উঠছে, গুলি করার মতো খুনের হুমকি পেলেও তিনি লিখিতভাবে পুলিশের দ্বারস্থ হননি। মৌখিকভাবে জানিয়েছেন। লিখিতভাবে এফআইআর করলে হয়ত আরও দ্রুত বিষয়টি নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া যেত।
সৌগত এও বলেন, ‘ওদের কোনও ভয় নেই। এক্ষেত্রে দেখছি এমন সিম কার্ড থেকে করেছে ট্রেস করা যাচ্ছে না।’
সৌগত ছাড়াও প্রাণহানির আশঙ্কা আরও দু’জন শীর্ষ নেতৃত্ব করেছেন। ঘটনাক্রমে জয়ন্তর সঙ্গে একাধিক ছবি-ভিডিয়ো এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরপাক খাচ্ছে। যদিও মদন মিত্র বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী আছেন বলেই আমরা আছি। আমি তো প্রার্থনা করি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজত্ব থাকতে থাকতেই যেন আমরা মরে যাই। তারপর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না থাকলে আমাদেরও পিটিয়ে মারবে। আমার তো ভয় লাগে এই গুণ্ডাদের উপর বলতে গিয়ে আমাদেরই গণপিটুনি হয়ে যাবে।’ অপরদিকে, মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘আমরাও পরিবার নিয়ে থাকি। যদি কাল আমাদের উপর বিপদ আসে। মুখ্যমন্ত্রী এই নিয়ে খুব কঠোর।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

six + nineteen =