চিনে যাচ্ছেন মালদ্বীপের নতুন প্রেসিডেন্ট, ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অবনতির আশঙ্কা

চিনে যাচ্ছেন মালদ্বীপের নতুন প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মুইজ্জু। আগামী ৮ জানুয়ারি তাঁর বেজিং যাওয়ার কথা। শুক্রবার চিনের বিদেশ মন্ত্রক একথা জানিয়েছে। আর তার পরই ভারত জানিয়ে দিল, কে কোথায় যাবে সেটা তার ব্যাপার। একই ভাবে আন্তর্জাতিক সম্পর্ককে তারা কীভাবে সেটাও তাদেরই ব্যাপার।

উল্লেখ্য, চিনপন্থী হিসাবেই আন্তর্জাতিক মহলে পরিচিত মালদ্বীপের নয়া প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মুইজ্জু। তাঁর আমলে ভারতের সঙ্গে মালদ্বীপের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে অবনতি হতে পারে বলেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। এই পরিস্থিতিতে জানা গেল ৮ থেকে ১২ জানুয়ারি সময়কালে চিনে থাকবেন তিনি। স্বাভাবিক ভাবেই মালদ্বীপের চিন-প্রীতিকে ভালোভাবে নিচ্ছে না নয়াদিল্লি। বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র রণবীর জওসওয়াল জানিয়েছেন, এটা একেবারেই তাদের তারা কোথায় যাবে এবং কীভাবে আন্তর্জাতিক সম্পর্কগুলো বজায় রাখবে।

উল্লেখ্য, মুইজ্জু বরাবরই ভারত বিরোধী। তিনি ক্ষমতায় আসীনও হয়েছেন ভারত বিরোধিতা করে। প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ভোটে জিতলে দেশ থেকে সরানো হবে ভারতীয় সেনাকে। তবে এখনও সেখান থেকে ভারতীয় সেনাদের সরানো হয়নি। কিন্তু ইতিমধ্যেই মোদির সঙ্গে করা চুক্তি বাতিল করে দিয়েছেন চিনপন্থী প্রেসিডেন্ট। ২০১৯ সালে মালদ্বীপ সফরে গিয়ে এই চুক্তি সই করেছিলেন মোদি। তার মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২০২৪ সালে জুন মাসে। দুই দেশের এই চুক্তি অনুযায়ী, মালদ্বীপের জলসীমায় পরীক্ষামূলক কাজকর্ম চালাবে ভারতীয় নৌসেনা। তার ফলে নৌপরিবহণ, আর্থিক উন্নতি, পরিবেশরক্ষার মতো নানা ক্ষেত্রে একে অপরকে সাহায্য করবে দুই দেশ। এছাড়াও জলসীমায় নিরাপত্তা বাড়াতেও কার্যকরী ভূমিকা থাকবে ভারতীয় নৌসেনার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *