যাতায়াতের সুবিধার্থে গাড়ি বানিয়ে বাবাকে উপহার ছেলের

মান্টি বন্দ্যোপাধ্যায়, কাটোয়া
নিজের হাতে চার চাকা গাড়ি তৈরি করে বৃদ্ধ বাবাকে উপহার দিলেন ছেলে। পূর্ব বর্ধমান জেলার কাটোয়া থানার অন্তর্গত রাজুয়া গ্রামের বাসিন্দা মহম্মদ আশরাফ মওলার ছেলে মঞ্জুর মওলা কারও সাহায্য ছাড়াই তৈরি করেছেন ব্যাটারিচালিত উইলি জিপ।
মঞ্জুর মওলা সর্বশিক্ষা মিশনে কর্মরত। মঞ্জুর তাঁর ৭২ বছর বয়সি বাবার যাতায়াতের সুবিধার জন্য এই গাড়ি তৈরি করেছেন। তিনি জানান, রাজুয়া থেকে কাটোয়া শহরের দূরত্ব ১০ কিলোমিটার। তাঁর বাবা মহম্মদ আশরাফ মওলা এখনও বিভিন্ন প্রয়োজনে সাইকেল কিংবা মোটর সাইকেল করে প্রায়ই কাটোয়া যাতায়াত করেন। দিন দিন মোটর সাইকেলে দুর্ঘটনার খবর বাবার জন্য চিন্তায় ফেলে মঞ্জুরকে। সেই চিন্তা থেকেই নিজের হাতে ব্যাটারিচালিত জিপ তৈরির কথা মাথায় আসে মঞ্জুরের।
যেমন ভাবা তেমন কাজ। কোনও প্রচার বা ব্যবসার জন্য নয়, শুধুমাত্র বাবার নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই এই গাড়ি তৈরি করে তিনি। বাবার প্রতি ভালোবাসা থেকে তৈরি গাড়ির ভালোবেসে নাম রাখেন কিং। নিজে পেশাদার ইঞ্জিনিয়ার না হলেও তাঁর তৈরি গাড়িতে কোনও অপেশাদারিত্বের চিহ্ন দেখতে পাওয়া যাবে না বলেই দাবি। প্রথমদিকে অনেক বাধা-বিপত্তি এলেও, সবকিছুকে অতিক্রম করে এই গাড়িটি তিনি তৈরি করেন।
পঞ্চাশ কিলোমিটার মাইলের সম্পূর্ণ গাড়িটি তৈরি করেছেন ইংরেজ আমলের ভিন্টেজ গাড়ির নকশার অনুকরণে। বডি তৈরি করে এনেছেন লেদ থেকে, ইঞ্জিন হিসেবে ব্যবহার করেছেন টোটোচালিত উন্নতমানের ব্যাটারি এবং বাকি সমস্ত কিছু তৈরি করেছেন নিজেই। উইলি জিপে মোট সিট সংখ্যা চারটি, সামনে চালকের সিট ও একটি ফ্রন্ট সিট এবং পেছনে দু’টি সিট। সামনে লাগানো একটি লুকিং গ্লাস। জিপটিতে মোট চারটি হেডলাইট লাগানো হয়েছে। এখনও পর্যন্ত এই জিপ গাড়িটি তৈরি করতে খরচ হয়েছে এক লক্ষ ২৫ হাজার টাকা। জিপ গাড়িটি রাস্তায় চালানোর জন্য আরটিও দপ্তর থেকে সরকারি ভাবে এখনও পর্যন্ত কোনও অনুমোদনপত্র পাননি, অনুমোদন পাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। মঞ্জুরবাবুর এই সাফল্যে তাঁর বাবা ও পরিবারের সঙ্গে গোটা গ্রামবাসী গর্বিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *