একসঙ্গে ঘুম, আলিঙ্গনে নিষেধ জারি! করোনা থেকে বাঁচতে সাংহাইয়ে চোঙা ফুঁকে নির্দেশ প্রশাসনের

চিনে করোনার (Corona Hotspot) নতুন হটস্পট সাংহাই। দু’কোটি ৬০ লক্ষ মানুষের বাসস্থান এই শহরে কোভিড দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। প্রতি দিন লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। ইতিমধ্যেই গোটা শহর ঘরবন্দি। একের পর এক কোভিড বিধিনিষেধ (Covid Guidelines) জারি করে গোটা শহরকে অবরুদ্ধ করে ফেলেছে প্রশাসন।

একসঙ্গে ঘুমনো যাবে না। করা যাবে না আলিঙ্গন। এমনকী চুম্বন করা থেকেও নিজেদের বিরত রাখতে হবে। কোভিড-বিধ্বস্ত চিনের সাংহাই শহরে এমনই কড়া নির্দেশিকা জারি করল প্রশাসন। যা নিতে রীতিমতো ক্ষোভ দানা বেঁধেছে শহরবাসীদের মধ্যে। সম্প্রতি একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে স্বাস্থ্যকর্মীরা চোঙা ফুঁকে এই বার্তাই দিচ্ছেন বাসিন্দাদের।

দরজা, জানলা খুলতে নিষেধ করা হয়েছে। বারণ করা হয়েছে গান গাইতেও! এমনকী এক সঙ্গে খাওয়াও যাবে না। খেতে হলে আলাদা আলাদা ভাবে খাওয়াদাওয়া করতে হবে। এমন নানাবিধ বিধিনিষেধে জেরবার গোটা সাংহাই। যখন এই বিধিনিষেধ সামলাতে ব্যস্ত গোটা শহর, আরও এক দফা বিধিনিষেধ নিয়ে হাজির প্রশাসন।

চিনের অন্যতম বড় শহর সাংহাইতে পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর। প্রশাসনের জারি করা কঠোর লকডাউন বিধির কারণে ওই শহরের বাসিন্দারা খুবই কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে সাংহাইয়ের বাসিন্দাদের জীবন যাপনের ছবি সামনে এসেছে, যা দেখে অনেকেই রীতিমতো আতঙ্কিত। বর্তমানে সাংহাইকেই চিনের করোনা সংক্রমণের হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। যদিও কয়েকদিনে সংক্রমিতের সংখ্যা অনেকেটাই কমেছে, তবে তা বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলির তুলনায় অনেকটাই বেশি। সেই কারণেই সাংহাইয়ের ২৬ লক্ষ নাগরিককে সম্পূর্ণ গৃহবন্দি হয়ে থাকার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। সাংহাইয়ের অনেক বাসিন্দাই সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশ কিছু ভিডিও শেয়ার করেছেন, তাতে দেখা যাচ্ছে এই করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাসিন্দাদের কী করতে হবে, তা বাতলে দিচ্ছে ড্রোন। নিত্যনৈমিত্তিক জিনিসের জোগান না থাকায় বাসিন্দারা যখন নিজের বারান্দাতে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদে সরব হয়েছেন, ঠিক সেই সময়েই হাজির ড্রোন জানান দিচ্ছে মেনে চলতে হবে করোনা বিধি, স্বাধীনতার ইচ্ছাকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seven − 4 =