সাঁকরাইলের ইমামির গোডাউনে বিধ্বংসী আগুন। ঘটনাস্থলে ১১ টি দমকলের ইঞ্জিন।

মহালয়ার দিন সকালেই হাওড়াতে বড় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটল। হাওড়ার সাঁকরাইল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক-এ ইমামি গোডাউনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডর ঘটনাটি ঘটে। স্থানীয় বাসিন্দাদের থেকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়
দমকলের ১১টি ইঞ্জিন। আগুনের ঘটনা প্রসঙ্গে প্রাথমিকভাবে শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লাগতে পারে বলেই অনুমান করছেন দমকল কর্মীরা। যদিও ঠিক কি ভাবে আগুন লেগেছে তা এখনও স্পষ্ট নয় বলেই মনে করছেন পুলিশ আধিকারিকরা।
স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে শনিবার ভোর ৬:৩০ মিনিট নাগাদ এই আগুনের ঘটনাটি ঘটে। গোডাউনে কোনো শ্রমিক না থাকায় কেউ হতাহত হন নি বলেই জানা যাচ্ছে। যদিও গোডাউনে বিপুল পরিমাণে ভোজ্য তেল মজুদ থাকার কারণে আগুনের তীব্রতা অনেক বেশি ছিল। গোডাউনে থাকা ভোজ্য তেল সম্পুর্নভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ক্ষতির সঠিক পরিমাণ না জানা গেলেও কয়েক কোটি টাকার ভোজ্য তেল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলেই সূত্রের খবর।
পাশের গোডাউনের কর্মচারী শঙ্কর ভট্টাচার্য্য বলেন, ‘ প্রথমে গোডাউনের পেছনের অংশে আগুন লাগে। তখন তারা বুঝতে পারেন নি। তারপর ৭ টা নাগাদ আগুন পুরো গোডাউনে ছড়িয়ে পড়ে। আমরাও আতঙ্কিত হয়ে কারখানা থেকে বাইরে বেরিয়ে যায়। আগুন ছড়িয়ে পড়ার ভয় ছিল। গোডাউনের ভিতর তেলের ব্যারেল বিস্ফোরণে তেল গড়িয়ে রাস্তায় জলের মতো বেরিয়ে আসে। এটা গোডাউন তাই শ্রমিক থাকতো না, বাইরে প্রহরী দায়িত্বে থাকে।  ঠিক কি কারণে আগুন লাগলো সেই বিষয়ে আমি সঠিক বলতে পারবো না।’
আগুন এখনও সম্পূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণে আসে নি বলেই জানা যাচ্ছে দমকল সূত্রে। এগারোটি ইঞ্জিন এখনও আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে যাচ্ছে বলেই সূত্রের খবর।
শনিবার ভোর থেকে বেলা যত বাড়ছে আগুনের তীব্রতা ততই বেড়েই চলেছে। গোডাউনে মজুত বিপুল পরিমাণে ভোজ্য তেল থাকার কারণে আগুনকে নিয়ন্ত্রনে আনতে দমকল কর্মীদের যথেষ্ট বেগ পেতে হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে এসেছেন হাওড়ার  নগর পাল প্রবীণ কুমার ত্রিপাঠী। ইমামির ওই গোডাউনের পাশে হ্যাভেলস-এর কারখানাতেও আগুন লেগেছে বলেই স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আরও দমকলের ইঞ্জিন মোতায়েন করার প্রয়োজন হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × three =