শাহজাহানকে পুলিশ লুকিয়ে রেখেছে: দিলীপ ঘোষ 

পশ্চিম মেদিনীপুর : খড়গপুর শহরের বগদা এলাকায় সাংবাদিকদের দিলীপ ঘোষ বলেন, শাহজাহানকে পুলিশ লুকিয়ে রেখেছে। পুলিশ কি তাকে অ্যারেস্ট করবে। করলে তো প্রথমেই করত। ডিজি গেছেন, এতদিন পর্যন্ত একটাও অফিসার কেন যাননি? ওখানে পুলিশ চোখ বন্ধ করে অপরাধীদের সঙ্গেই ছিল। বছরের পর বছর লোক অত্যাচারিত হয়েছে। জমি, বাড়ি, মান সম্মান লুট করা হয়েছে। পুলিশ সব জানে তাই পুলিশের উপর থেকে সাধারণ মানুষের বিশ্বাসটাই চলে গেছে।
আজকে পুলিশের গাড়ি আটকানো হচ্ছে, পুলিশকে গো ব্যাক বলা হচ্ছে। কথা বলতে চাইছে না। উনারা বলছে কোন অভিযোগ নেই, যেই অভিযোগ নেওয়া শুরু হল ১,২৫০ জন অভিযোগ করেছেন। আর কত অভিযোগ চাই? মমতা ব্যানার্জি বিধানসভায় দাঁড়িয়ে মিথ্যে কথা বলছেন যে কিছু হয়নি। কিছু হয়েছে কিনা কেউ দেখতে যায়নি। আজকে তাই সাধারণ মানুষের ক্ষোভ আছড়ে পড়েছে। তাই পুলিশ প্রশাসন কাউকে তারা বিশ্বাস করছে না।
সন্দেশখালিতে সরকার পক্ষকে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে, কিন্তু বিরোধীদের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না কেন? এই প্রসঙ্গে বলেন, উনারা ভয় পাচ্ছেন অন্য পার্টির লোকেরা গেলে ক্ষোভ আরো বেড়ে যাবে। কিন্তু এই মন্ত্রীরা এতদিন পরে গেলেন কেন? আরো আগে কেন গেলেন না? মমতা ব্যানার্জি ভারতবর্ষের যেখানে কোনও গন্ডগোল হয় প্রতিনিধি দল পাঠিয়ে দেন। সন্দেশখালি ৫০ কিলোমিটার দূরে। কেন যেতে পারছেনা নদী পার হয়ে? উনারা চোখের আড়ালে রেখে ঘটনাটা চেপে দিতে চাইছেন। কিন্তু স্থানীয় মানুষ যে সাহসের সঙ্গে আন্দোলন করছেন এগিয়ে যাচ্ছেন, বিশেষ করে মহিলারা, যা তার পক্ষে চাপা সম্ভব হচ্ছে না, সারা ভারতবর্ষ এই নিয়ে নিন্দা করছে।
সন্দেশখালির অবস্থা নিয়ে দলের আগে থেকে বোঝা পড়া করা উচিত ছিল।  কুনাল ঘোষের এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বলেন, উনি সকালে একরকম বলেন, বিকেলে একরকম বলেন। এখন উপলব্ধি হচ্ছে যখন মানুষ ক্ষেপে গেছে। যারা ইডি-সিবিআইকে লোক দিয়ে পেটাতেন। আজকে তাদের নেতাদেরকে জুতোপেটা করা হচ্ছে। এই জুতোপেটা খাওয়ার ভয়ে কোনও নেতা-মন্ত্রী যাচ্ছে না। আজকে প্রোটেকশন নিয়ে নেতা-মন্ত্রীদের পাবলিকের সামনে যেতে হচ্ছে। ওখানকার এমপি কোথায় গেলেন? সুন্দর চেহারা দেখে যারা আজকে ভোট দিয়েছেন। তারা আজকে ধর্ষিতা হচ্ছেন। এই যে দুর্ভাগ্যজনক পরিস্থিতি, এটাকে উল্টোপাল্টা স্টেটমেন্ট দিয়ে মিথ্যা কথা বলে মুখ্যমন্ত্রী চেপে দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *