মোক্ষম সময় ইমরানের আর্জিতে খারিজ পাক সংসদ, ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন ঘোষণা

সাময়িক স্বস্তি পেলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান (Imran Khan)। তাঁকে প্রধানমন্ত্রীর গদি থেকে সরাতে বিরোধীরা যে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছিল, তা এদিন পাক সংসদে খারিজ করে দেওয়া হয়। এরপরই জাতির উদ্দেশে ভাষণ রাখেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সেখানেই তিনি জানান যে, প্রেসিডেন্টের কাছে অধিবেশন ভেঙে দেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন তিনি। একইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের দায়িত্ব যাতে দেশবাসীর উপরই দেওয়া হয়, তার জন্য দ্রুত নির্বাচনের দাবিও করেছিলেন তিনি। সেই দাবিকেই মান্যতা দিয়ে ভেঙে দেওয়া হল পাক সংসদ। সরকারের তরফে ঘোষণা করা হল আগামী ৯০ দিনের মধ্যেই নির্বাচন করতে হবে

 

অধিবেশনের শুরুতেই নাটকের নতুন অঙ্ক রচিত হয়। দেখা যায় বিরোধীরা ইমরানের আগে সংসদের ডেপুটি স্পিকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনে। এর পরেই ইমরানের বিরুদ্ধেও অনাস্থা প্রস্তাব (No Trust Motion) আনা হয়। সেই সময় সংসদে ইমরানের দলের মাত্র ২২ জন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। হার প্রায় নিশ্চিত। হাজির ছিলেন না ইমরানও। ঠিক যখন পাকিস্তানের নির্বাচিত সরকারের পতন অবশ্যম্ভাবী হয়ে দাঁড়িয়েছে, ঠিক তখনই শেষ মুহূর্তে ম্যাচ বাঁচিয়ে নিলেন ১৯৯২ সালের বিশ্বজয়ী পাকিস্তান দলের ক্যাপ্টেন। 

 

আজ, পাকিস্তানের রাজনীতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিন ছিল। কারণ আজই পাকিস্তানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে পেশ করা অনাস্থা প্রস্তাবে ভোট হওয়ার কথা ছিল। পরিকল্পনা মতোই সংসদ অধিবেশন শুরু হলেও, ডেপুটি স্পিকার অনাস্থা প্রস্তাব বাতিল করে দেন।তিনি জানান, এই অনাস্থা প্রস্তাব দেশের সংবিধান বিরুদ্ধ জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও ঝুঁকি তৈরি করছে। সেই কারণেই এই প্রস্তাব বাতিল করা হচ্ছে

ডেপুটি স্পিকারের এই ঘোষণার পরই জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, ‘সরকারের পতনের জন্য যে চক্রান্ত করা হচ্ছিল, তা ভেস্তে দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী কে থাকবেন, তা দেশের মানুষকেই সিদ্ধান্ত নিতে দেওয়া হোক। আপনারাই দেশের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবেন, কোনও দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যক্তি বা  বিদেশিরা নয়। আমি প্রেসিডেন্টের কাছে সংসদ ভেঙে দেওয়ার আর্জি জানিয়েছি। গণতান্ত্রিক পথেই দেশের শাসন চলুক। আপনারা নির্বাচনের জন্য় প্রস্তুত থাকুন। সংসদ ভেঙে দেওয়া হলেই নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করা হবে এবং ভারপ্রাপ্ত সরকার গঠন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 + two =