রচিত হল নতুন ইতিহাস, অযোধ্যায় বিরাজমান রামলালা

রচিত হল ইতিহাস। অযোধ্যায় বিরাজমান রামলালা। গুনে গুনে ঠিক ৮৪ সেকেন্ড। তার মধ্যেই সম্পন্ন হল অযোধ্যার রামমন্দিরে রামের বিগ্রহে প্রাণপ্রতিষ্ঠা। চারিদিকে শঙ্খধ্বনি ও হেলিকপ্টারে পুষ্পবৃষ্টির মধ্যেই মন্দিরের গর্ভগৃহে চললো রামলালার প্রাণপ্রতিষ্ঠা অনুষ্ঠান।

সোমবার ঠিক বেলা ১২টা বেজে ২৯ মিনিট ৩ সেকেন্ডে ‘অভিজিৎ মুহূর্ত’ শুরু হয়। পবিত্র এই মুহূর্ত স্থায়ী ছিল ১২টা বেজে ৩০ মিনিট ৩৫ সেকেন্ড পর্যন্ত। তার মধ্যেই রামলালার বিগ্রহে ‘প্রাণপ্রতিষ্ঠা’ করলেন প্রধানমন্ত্রী।

‘প্রাণপ্রতিষ্ঠা’ ৮৪ সেকেন্ডে হলেও অযোধ্যার রামমন্দিরে সমগ্র উদ্বোধন অনুষ্ঠানটি চলল এক ঘণ্টার বেশি সময় ধরে। ১২টা ৫ মিনিটে অনুষ্ঠান শুরু হয়। মোদি অবশ্য অযোধ্যা পৌঁছেছিলেন সাড়ে দশটার কিছু পর। সকাল ১০টা ২৫ মিনিটে অযোধ্যার বাল্মীকি বিমানবন্দরে নামার কথা ছিল তাঁর। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে অযোধ্যার হেলিপ্যাডে পৌঁছন। ১০টা ৫৫ মিনিটে রামমন্দির প্রাঙ্গণে পৌঁছনোর কথা ছিল প্রধানমন্ত্রীর। বেলা ১২টার পরে শুরু হয় উদ্বোধন অনুষ্ঠান।

রামলালাকে যে মুকুট পরানো হবে তা হাতে নিয়ে মন্দিরে প্রবেশ করেন প্রধানমন্ত্রী। শুরু হয় প্রাণপ্রতিষ্ঠার অচার। অবশেষে মাহেন্দ্রক্ষণে রামলালার মূর্তির প্রাণপ্রতিষ্ঠা হয়। নিয়ম মেনে হয় পুজোর আচার। পুজো শেষে পঞ্চপ্রদীপ জ্বালিয়ে, চামড় দুলিয়ে আরতি করেন মোদি। পুজো শেষে রামলালার প্রদক্ষীণ করেন। শেষে সাষ্টাঙ্গে প্রণাম করেন রামলালাকে। পুরো পুজো পদ্ধতি পালনের সময় প্রধানমন্ত্রীর পাশে ছিলেন যোগী আদিত্যনাথ, আনন্দিবেন প্যাটেল, মোহন ভগবত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *