রাজ্য বাজেটে কল্পতরু মমতা

লোকসভা ভোটের আগে কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একদিকে যেমন লক্ষ-লক্ষ সরকারি চাকরির প্রতিশ্রুতি রইল রাজ্য বাজেটে। তেমনই রইল সরকারি কর্মচারীদের মহার্ঘভাতা থেকে চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের মাসিক ভাতা বৃদ্ধির সংস্থানও।

বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, রাজ্যের যুবক-যুবতীদের জন্য প্রচুর সরকারি চাকরির সংস্থান রয়েছে বাজেটে। যুবক-যুবতীদের কর্মসংস্থানের জন্য বিভিন্ন সরকার এবং সরকার নিয়ন্ত্রিত সংস্থাগুলোতে সমস্ত খালিপদ পূরণ করার জন্য ৫ লক্ষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে। পাশাপাশি,রাজ্যের উদ্যোগে ৬টি ইকোনমিক করিডোর হলে সেখানেও প্রচুর কর্মসংস্থান হবে। আবাস যোজনায় বড় ঘোষণা বাজেটে। উল্লেখ করা হয়েছে, কেন্দ্র বকেয়া অর্থ দেয় কি না সেদিকে নজর রাজ্য সরকারের। এপ্রিল মাস অবধি দেখবে তারা। মে মাসের ১ তারিখ থেকে অর্থ ছাড়বে রাজ্য সরকার। ১১ লক্ষের ঘরের জন্য সেই বরাদ্দ করা হবে। পরিযায়ী শ্রমিকরা তাদের কর্মক্ষেত্রে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের সুবিধা পাবেন, পরিযায়ী শ্রমিক পোর্টালে যারা নথিভুক্ত আছে, তাদের স্বাস্থ্যসাথীর আওতায় আনা হল।

শুধু সরকারি চাকরি নয়, বেড়েছে সরকারি কর্মচারীদের মহার্ঘভাতাও। ডিএ বাড়ছে আরও ৪ শতাংশ। লক্ষ্মীর ভান্ডারের মাসিক ভাতাও দ্বিগুণ হয়েছে অসংরক্ষিত সম্প্রদায়ের মহিলাদের। জনজাতি মহিলাদের মাসিক ভাতা বেড়ে হয়েছে ১২০০ টাকা। মাসিক ভাতা বেড়েছে চুক্তিভিত্তিক সরকারি কর্মীদের। বাজেটে বলা হয়েছে, চুক্তিভিত্তিক গ্রুপ ডি ও গ্রুপ সি কর্মচারীদের মাসিক পারিশ্রমিক যথাক্রমে ৩ হাজার ও সাড়ে ৩ হাজার টাকা করে বাড়বে। এর ফলে ৪০ হাজার কর্মী উপকৃত হবে। এই খাতে বরাদ্দ ২৮৮ কোটি টাকা। সরকারের আওতায় থাকা তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীদের পারিশ্রমিক ক্যাটাগরি অনুযায়ী বাড়ানো হল। নতুন আর্থিক বছরে কার্যকর হবে বেতনের নতুন কাঠামো।

বেড়েছে গ্রিন পুলিশ, ভিলেজ পুলিশ এবং সিভিক ভলান্টিয়ার্সদের মাসিক বেতনও। তাঁদের ভাতা বাড়ল মাসে ১০০০ টাকা। সিভিক পুলিশ, গ্রিন পুলিশ, যারা চুক্তিভিত্তিক কর্মী তাদের এককালীন অবসরকালীন সুবিধা ৩ লক্ষ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫ লক্ষ টাকা করা হল। পাশাপাশি মাসিক ভাতা বাড়ল মিড ডে প্রকল্পের কুক কাম হেল্পারদেরও। তাঁরা এতদিন যাবত বছরে ১০ মাস ১ হাজার টাকা করে পেতেন। এবার থেকে প্রতি মাসে অতিরিক্ত ৫০০ টাকা করে দেবে রাজ্য। এই খাতে খরচ হবে ১৪০ কোটি টাকা। উপকৃত হবে ২ লক্ষ ৩০ হাজার কুক কাম হেল্পার। সমুদ্রসাথী প্রকল্পের ঘোষণা বাজেটে। পূর্ব মেদিনীপুর, উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনার মৎস্যজীবীরা নানা প্রতিকূলতাকে চ্যালেঞ্জ করেই সমুদ্রে যান। এপ্রিলের মাঝামাঝি থেকে জুন মাস অবধি যেহেতু সমুদ্র যেতে নিষেধ থাকে, তাঁদের পেটেও টান পড়ে। তাই এই প্রকল্প। এর মাধ্যমে এপ্রিলের মাঝামাঝি থেকে জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত এই দুই মাস প্রতি মাসে ৫ হাজার টাকা করে পাবেন। এর ফলে প্রায় ২ লক্ষ মৎস্যজীবী উপকৃত হবেন। ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে এই প্রকল্পে। সবমিলিয়ে লোকসভা ভোটের  আগে কল্পতরু রাজ্য সরকার, অভিমত রাজনৈতিক মহলের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *