গ্রামের জলকষ্ট নিয়ে মন্তব্য বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের, পুরসভা থেকে পানীয় জল পাঠানোর ব্যবস্থা মুখ্যমন্ত্রীর

বছরের পর বছর জলকষ্টে ভোগা মামলাকারী দরিদ্র মানুষগুলোর সমস্যা শুনতে এজলাসে নিজের আসন ছেড়ে উঠে এসেছিলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। এ নিয়ে কলকাতা হাই কোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের এজলাসে শুনানির সময় বেশ কিছু মন্তব্য করেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। ঘটনার কথা কানে যেতেই নকশালবাড়ির গ্রামে জলকষ্ট মেটাতে শিলিগুড়ি পুরসভার মেয়রকে নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার বাগডোগরা বিমানবন্দরের সামনে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী জানান, এ নিয়ে এই মুহূর্তে আদালতের হস্তক্ষেপ করার প্রয়োজন নেই। তিনি বলেন, ‘ওঁরা ঠিকঠাক ভাবেই পানীয় জল পাবেন। পিএইচই কাজ করছে।’ মুখ্যমন্ত্রীর সংযোজন, ‘যত দিন না কাজ শেষ হচ্ছে, তত দিনের জন্য ওই গ্রামবাসীদের পুরসভা থেকে পানীয় জলের বিশেষ ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’
২০১৯ সাল থেকে শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের নকশালবাড়ি ব্লকের হাতিঘিষা গ্রাম পঞ্চায়েতের সেবদুল্লা গ্রামে পানীয় জলের অভাবের অভিযোগ ওঠে। মামলাকারীদের অভিযোগ, গ্রামে দীর্ঘদিন ধরে জলকষ্ট। পিএইচই দপ্তরে আবেদন করায় গ্রামে জলের কল লাগিয়ে দেওয়া হয়। জল সমস্যা মিটে যায়। বাড়ি বাড়ি সংযোগ দিয়ে জল পৌঁছে দেওয়ার প্রচেষ্টাও শুরু হয়। কিন্তু তার পর আবার সমস্যার শুরু হয়। আবার পানীয় জলের অভাব শুরু হয়।
বারবার আবেদন করেও সমস্যার সমাধান না হওয়ায় আদালতের দ্বারস্থ হয় কয়েকটি পরিবার। মামলাকরীদের অধিকাংশই আদিবাসী চা-শ্রমিক পরিবারের। সোমবার ওই মামলার শুনানিতে মামলাকারীদের আইনজীবী দাবি করেন, শুনানির দিন এলেই কলে জল চলে আসে। তার পর কোনও অজানা কারণে আর জল পাওয়া যায় না। সমস্যা বুঝতে অভিযোগকারীদের এজলাসে ডেকে পাঠিয়েছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। এ নিয়ে গ্রামবাসীদের সঙ্গে প্রায় এক ঘণ্টা কথা বলেন তিনি। সব শোনার পর বুধবার শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক দপ্তর, প্রকল্প রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা ঠিকাদার-সহ আরও কয়েক জনকে দুপুর ২টোর মধ্যে এজলাসে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন বিচারপতি।
অন্য দিকে, মুখ্যমন্ত্রী এই মুহূর্তে উত্তরবঙ্গে রয়েছেন। ওই ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি জানান, সরকার এবং প্রশাসনের তরফে ইতিমধ্যে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এখন আর আদালতকে এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করতে হবে না। মমতার কথায়, ‘সমস্যা সমাধানে কিছু সময় লাগবে। এই মুহূর্তে (আদালতের) হস্তক্ষেপের কোনও প্রয়োজন নেই।’ মুখ্যমন্ত্রী তাঁর পাশে দাঁড়ানো গৌতম দেবকে দেখিয়ে বলেন, ‘আমি শিলিগুড়ির মেয়রকে বলেছি, যত দিন না সমস্যা না, তত দিন পানীয় জলের ট্যাঙ্ক পাঠান ওই গ্রামে। যাতে স্থানীয়রা অসুবিধায় না ভোগেন দেখতে হবে।’
পাশাপাশি এই ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ এস এস আলুওয়ালিয়াকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, ‘এই ঘটনায় আমি মেয়র গৌতম দেব এবং জেলাশাসকের কাছে বিষয়টি নিয়ে খবর নিয়েছি। আহলুওয়ালিয়া ওই গ্রাম ‘অ্যাডপ্ট’ করেছিলেন। কাউকে ঢুকতে দিচ্ছিল না। কিন্তু তার পর তার দায়িত্ব পালন করেননি। ফলে ওখানে একটা ক্রাইসিস চলছিল।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *