দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচ ৪৪ রানে জিতে সিরিজে ২-০ তে এগিয়ে ভারত

নিখুঁত পারফরম্যান্স। এ ছাড়া আর কী বলা যায়! সূর্যকুমার যাদবের নেতৃত্বে তরুণ দল নামিয়েছে ভারত। অজি দল অনেক বেশি অভিজ্ঞ। বিশাখাপত্তনমে প্রথম ম্যাচে রেকর্ড রান তাড়া করে জিতেছিল ভারত। তিরুবনন্তপূরমে টস জিতে অ্যাডভান্টেজ ছিল অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচে বৃষ্টি এবং শিশিরের সম্ভাবনা ছিল। বৃষ্টি বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি। তেমনই শিশিরের প্রভাবকে বাধা হতে দেয়নি ভারতীয় শিবির। প্রথমে ব্যাট করায় ভারতের প্রয়োজন ছিল বিশাল স্কোরের। সেটাই হল। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের পঞ্চম সর্বাধিক স্কোর গড়ল টিম ইন্ডিয়া। টপ থ্রি ব্যাটারের হাফসেঞ্চুরি এবং রিঙ্কু সিংয়ের অনবদ্য ইনিংস। বোলাররা দায়িত্ব পালন করেন। ৪৪ রানের বিশাল জয়ে সিরিজে ২-০ এগিয়ে গেল ভারত।

রবিবার টস জিতে ভারতকে ব্যাট করতে পাঠান অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ম্যাথু ওয়েড।

ভারতের প্রথম তিন ব্যাটারই অর্ধশতরান করেন। যশস্বী ২৪ বলে অর্ধশতরান করেন। কিন্তু তার পরেই আউট হয়ে যান তিনি। ২৫ বলে ৫৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন তরুণ ওপেনার। ন’টি চার এবং দু’টি ছক্কা হাঁকান যশস্বী। অর্থাৎ ৪৮ রান বাউন্ডারি মেরেই তুলে দেন তিনি। আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে দেখা যায় তিন নম্বরে নামা ঈশান কিশনকেও। তিনি ৩২ বলে ৫২ রান করেন। চারটি ছক্কা এবং তিনটি চার মারেন তিনি। বিশ্বকাপ খেলে আসা তরুণ উইকেটরক্ষক অর্ধশতরান করার পর আর বেশি ক্ষণ ক্রিজে টিকতে পারেননি।

যশস্বী এবং ঈশান যখন দ্রুত রান তুলছিলেন, তখন উল্টো দিকে ব্যাট করছিলেন রুতুরাজ গায়কোয়াড়। তিনি স্ট্রাইক রোটেট করতে থাকেন। বল বুঝে বাউন্ডারিও মারেন। যশস্বী এবং ঈশান আউট হলেও তিনি শেষ পর্যন্ত খেলার চেষ্টা করে যান। ৪৩ বলে ৫৮ রান করে রুতুরাজ আউট হলেন ২০তম ওভারে। ভারতের রান তখন ২০০ পার করে গিয়েছে। আর সেটার কারণ অবশ্যই রিঙ্কু সিংহ। এ দিন ৯ বলে ৩১ রান করে গেলেন তিনি। চারটি চার এবং দু’টি ছক্কা মারেন রিঙ্কু। তাঁর সেই ঝোড়ো ইনিংসে ভারত শেষ করে ২৩৫ রানে।

হাতে ২৩৫ রান নিয়ে খেলতে নামা ভারতীয় দলের বোলারদের কাছে কাজটা কিছুটা সহজ ছিল। কিন্তু মাথায় অবশ্যই চলছিল আগের ম্যাচের অস্ট্রেলিয়া ২০০ রানের উপর তোলার পরেও হেরেছিল। রবিবার প্রথম দু’ওভারে প্রসিদ্ধ কৃষ্ণ এবং আরশদীপ সিংহ ৩১ রান দেওয়ার পর যে ভয় আরও বেড়ে যায়। তবে দলকে ম্যাচে ফেরান রবি বিষ্ণোই। তিনি চার ওভারে ৩২ রান দিয়ে তিন উইকেট তুলে নেন। ফলে অস্ট্রেলিয়া দ্রুত রান তুললেও নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায়। যে চাপ বড় শট খেলতে বাধ্য করে অসি ব্যাটারদের। বিশাখাপত্তনমে ব্যাটারেরা ভাল খেললেও বোলারেরা পারেননি। রবিবার দু’টি বিভাগেই সফল ভারত। শুরুর দিকে ভারতের পেসারেরা রান দিয়ে ফেললেও পরের দিকে অস্ট্রেলিয়ার উপর চেপে বসেন তাঁরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × 3 =