৩১ বছরের জেল মুম্বই হামলার মূলচক্রী হাফিজ সইদের

সন্ত্রাসমূলক কাজে আর্থিক সহায়তা প্রদানের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হলেন হাফিজ সইদ (Hafiz Saeed)। লস্কর-ই-তইবা প্রধানের ৩১ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে পাকিস্তানের একটি আদালত। শুক্রবার জানা গিয়েছে, লাহোরের একটি আদালত লস্কর প্রধানকে ৩ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা আর্থিক জরিমানা করেছে।  একইসঙ্গে, তার ব্যক্তিগত সম্পত্তি এবং সংগঠন জামাত-উদ-দাওয়ারের সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছে পাকিস্তানের বিশেষ সন্ত্রাসদমন আদালত।

জানা গিয়েছে, সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের দু’টি মামলায় হাফিজ সইদকে দোষী সাব্যস্ত করেছে আদলত। জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তইবার প্রতিষ্ঠাতা সইদকে ৩ লক্ষ ৪০ হাজার টাকার জরিমানাও করেন বিচারক। সূত্রের খবর, হাফিজের তৈরি একটি মাদ্রাসা ও মসজিদেরও দখল নেবে প্রশাসন। বলে রাখা ভাল, এর আগে ২০২০ সালে সন্ত্রাসবাদের একাধিক মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয় হাফিজ। সেবার ১৫ বছরের জেলের সাজাও দেওয়া হয় আইএসআইয়ের আস্থাভাজন ওই জঙ্গিনেতাকে। তবে আদালত সাজা দিলেও একঅর্থে পাকিস্তানে ‘মুক্ত বিচরণ’ করেছে রাষ্ট্রসংঘের ঘোষিত সন্ত্রাসবাদী হাফিজ সইদ। একাধিক জনসভায় ভারতের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক ভাষণও দিতে শোনা যায় তাকে।

উল্লেখ্য, গতবছর ‘গ্লোবাল জিহাদি’ হাফিজ সইদের লাহোরের বাড়ির সামনে প্রচণ্ড বিস্ফোরণ ঘটে। রাষ্ট্রসংঘের ঘোষিত আন্তর্জাতিক জঙ্গি হাফিজ সইদের মাথার দাম ১০ মিলিয়ন ডলার ধার্য করেছে আমেরিকা। সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে জড়িত থাকার অপরাধে বেশ কয়েকবছরের জেল হয়েছে নিষিদ্ধ সংগঠন ‘জামাদ-উদ-দাওয়া’ প্রধানের। বর্তমানে পাকিস্তানের কোট লখপত জেলে হাফিজ রয়েছে বলে দাবি ইসলামাবাদের। কিন্তু সে দেশের কয়েকটি সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, বিস্ফোরণের সময় হাফিজ নিজের বাড়িতেই ছিল। এদিন সাজা ঘোষণা হলেও সেই সাজা যে কার্যকরী হবেই তা নিয়ে সংশয় ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

12 + 3 =