সিএএ জুমলার ফাঁদ! পা না দেওয়ার আহ্বান অভিষেকের

নিজস্ব প্রতিবেদন, পূর্ব বর্ধমান: সিএএ নিয়ে মোদিকে বি¥ধলেন তৃণমূলের সেনাপতি অভিষেক ব¨্যােপাধ্যায়। পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়া স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত জনগর্জন সভা থেকে তৃণমূলের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘সিএএ হল জুমলা। ওর ফাঁদে পা দেবেন না। মোদির গ্যারান্টি মানে ‘জিরো’ ওয়ারেন্টি। কিন্তু দিদির গ্যারান্টি মানে ‘লাইফ টাইম ওয়ারেন্টি। সেই কারণে সিবিআই ও ইডিকে লাগিয়েও ওরা ‘জামানত জধ’ হওয়া আটকাতে পারবে না।’
শুক্রবার একই সঙ্গে তিনি জনসভায় উপস্থিত মানুষজনকে আশ্বাস দিয়ে বলেন, ‘বাড়ির টাকার জন্য কারও কাছে হাত পাততে হবে না। আগামী ছ’মাসের মধ্যে আপনাদের বাড়ির টাকার ব্যবস্থা মমতা সরকার করবে। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে মিলে যাবে প্রথম কিস্তির টাকা।’ যদিও এনিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিজেপি নেতারা। তাঁদের দাবি, ‘মানুষ মুখ ঘুরিয়ে নিয়েছে বুঝে তৃণমূল এখন টোপ দিয়ে ভোট পেতে চাইছে।’
এদিন বর্ধমান-দুর্গাপুর লোকসভা আসনে দলের প্রার্থী কীর্তি আজাদ এবং বর্ধমান পূর্বের প্রার্থী শর্মিলা সরকারকে সঙ্গে নিয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কাটোয়ায় জনসভা করেন। কর্মী ও সমর্থকদের ভিড়ে ঠাসা সেই জনসভায় দলের জেলা নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। সিপিএম ও কংগ্রেসকে নিয়ে কোনও বাক্য না বললেও এদিন আগাগোড়াই অভিষেকের নিশানায় ছিল বিজেপি ও কেন্দ্রের সরকার।
বাংলার প্রতি কেন্দ্রের বঞ্চনার বিশদ ব্যাখ্যা দিয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন বিজেপিকে বাংলা বিরোধী আখ্যা দেন। তিনি বলেন, ‘নিজের বাড়ির অধিকারকে সামনে রেখে ২৪-এর লোকসভায় ভোট দেবেন। মনে রাখবেন, আগামী দিন বিজেপি শক্তিশালী হলে ওরা প্রথমেই কিষান ক্রেডিট কার্ড ও লক্ষ্মীর ভান্ডার বন্ধ করে দেবে। মোদির গ্যারান্টি মানে জিরো ওয়ারেন্টি। কিন্তু দিদির গ্যারান্টি মানেই লাইফটাইম ওয়ারেন্টি। ২১-এর বিধানসভা ভোটের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের মহিলাদের জন্য লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প চালু করবেন বলে কথা দিয়েছিলেন। সেই কথা রেখেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি এই প্রকল্পে অনুদানের অর্থও রাজ্য সরকার বাড়িয়েছে। কিন্তু বিজেপি ‘আচ্ছে দিনের’ স্বপ্ন পূরণ করেনি। উলটে স্বপ্নভঙ্গ করে দিয়েছে। রান্নার গ্যাস থেকে শুরু করে ডাল,তেল সহ নিত্য প্রয়োজনীয় সব কিছুরই অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে। শুধু তাই নয়, ২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় পরাজিত হওয়ায় কেন্দ্রের সরকার আবাস যোজনায় বাংলার ৮ হাজার কোটি টাকাও আটকে রেখেছে।’
জনগর্জন সভা থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবারের লোকসভা ভোটের তাৎপর্যের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘এবারের লোকসভা ভোট শুধুমাত্র কেন্দ্রের সরকার নির্বাচনের ভোট নয়। এবারের নির্বাচন বাংলা বিরোধীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও প্রতিশোধের ভোট। এই বাংলা বিরোধীদের নিশ্চিহ্ন করতে হবে। জামানত জধ করতে হবে।’ যে অঞ্চল, যে পঞ্চায়েত এলাকার বিজেপির জামানত জধ হবে, সেই অঞ্চলে তৃণমূল পরিষেবায় কোনও ত্রুটি রাখবে না বলেও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন ভরা সভা থেকে ঘোষণা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *