‘বাংলার দুর্গোপুজো’-কে ইউনেস্কোর স্বীকৃতি উদযাপনে ব্রাত্য বাংলাই!

‘বাংলার দুর্গাপুজো’-কে ইউনেস্কোর দেওয়া স্বীকৃতি উদযাপনে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অনুষ্ঠানে ব্রাত্য বাংলাই! এরাজ্যের সরকারের প্রতিনিধি বা পুজো কমিটিই শুক্রবার ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের ওই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পাননি।এই নিয়ে এবার কেন্দ্রীয় সরকারকে তীব্র আক্রমণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্যের দুর্গাপুজোর বিশ্বমঞ্চে স্থান পাওয়ার কৃতিত্ব শুধুমাত্র এ রাজ্যের মানুষ ও পুজো কমিটির বলে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামের অনুষ্ঠান থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আজ দুর্গাপুজোকে কোথায় নিয়ে গিয়েছি আমরা। ১০ বছর ধরে দুর্গাপুজোকে প্রোমোট করতে করতে এবং দুর্গাপুজোর কার্নিভালকে বর্ণাঢ্য করে তুলে ধরে ইউনেস্কো কালচারাল হেরিটেজ ঘোষণা করেছে। এটা আমরা চেষ্টা করে করেছি। অন্য কারও কোনও অবদান নেই। অবদান রয়েছে পুজো করে যেসব ক্লাবগুলোর, পুজো কমিটিগুলোর, অবদান রয়েছে সাধারণ মানুষের।’

অন্যদিকে তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায় টুইটারে লেখেন, ‘দুর্গাপুজো ইউনেস্কোর ইনট্যানজিবল হেরিটেজ তকমা শাহ-মোদির জন্য পায়নি। পেয়েছে শিল্পীদের অবদানের জন্য, থিমশিল্পী, আয়োজক এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অকুন্ঠ সমর্থনের জন্য। অথচ এখন সেই কৃতিত্ব তারা নিতে চাইছেন, যারা এতদিন বলেছেন বাংলায় দুর্গাপুজো করতে দেওয়া হয় না।’

জানা গিয়েছে শুক্রবার ৬ মে সন্ধ্যা ৬টায় ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের সেন্ট্রাল হলে ‘মুক্তি মাতৃকা’ নামে এক অনুষ্ঠান করছে সংস্কৃতি মন্ত্রক। এই অনুষ্ঠানের যে আমন্ত্রণপত্র সামনে এসেছে সেখানে দু’টি নাম রয়েছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের। সূত্রের খবর, এই অনুষ্ঠান সম্পর্কে রাজ্যের কাছে এখনও কোনও আমন্ত্রণ আসেনি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

16 + eight =