সামনে হায়দরাবাদ, বুমোসকে খেলানো নিয়ে সংশয়ে সবুজ-মেরুন কোচ

জামেশদপুরের কাছে হেরে এই মরশুমেও লিগ উইনার হওয়ার স্বপ্ন বিফলে গিয়েছে এটিকে মোহনবাগানের। লিগ চ্যাম্পিয়ন হওয়া হয়তো সম্ভব হল না, কিন্তু আইএসএল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সুযোগ তো আছেই। আর তার জন্য শেষ চারে দু’দফায় হায়দরাবাদ এফসিকে হারাতে পারলেই একমাত্র চ্যাম্পিয়নশিপের দোড়গোড়ায় পৌঁছে যাবে এটিকে মোহনবাগান।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলা কিংবা সরাসরি এএফসি কাপের নকআউট- লিগ বা আইএসএল, কোনওটা চ্যাম্পিয়ন হলেই এই মরশুমে খেলা সম্ভব নয়। সামনের মরশুমের চ্যাম্পিয়নের সঙ্গে প্লে অফে জেতার পরেই ঠিক হবে, কারা খেলবে এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। না হলে এএফসি কাপের নকআউট পর্ব। এবারের আইএসএল তাই স্বাভাবিকভাবেই আন্তর্জাতিক আঙিনা ছেড়ে ঘরোয়া সম্মানের। আর সেই সম্মান প্রাপ্তির জন্যই শনিবার হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে প্রথম সেমিফাইনালে মাঠে নামবে এটিকে মোহনবাগান।

এই মরশুমে অনেক ঢাকঢোল পিটিয়ে আনা হয়েছিল হুগো বুমোসকে। পারফরম্যান্স দিয়ে শুরুটাও সেভাবেই করেছিলেন তিনি। আর তারপরেই চোট এবং কোচ হাবাসের পরিবর্তন। এর সঙ্গে ফের করোনায় আক্রান্ত পুরো দল। ফের যখন খেলা শুরু হল, হুগো বুমোস, রয় কৃষ্ণ-সহ একাধিক ফুটবলার নেই। ঠিক তখন থেকে দুই ভারতীয় ফুটবলার, লিস্টন কোলাসো এবং মনবীর সিংকে নিয়ে পুরো দলটাকে টানা শুরু করেছেন ইউরো খেলা ফুটবলার জনি কাউকো। এই মুহূর্তে দলের অন্যতম স্তম্ভ।

ফলে হুগো বুমোস যখন চোট কাটিয়ে অনেকটাই সুস্থ হয়ে উঠেছেন তখন জনি কাউকোকে বসিয়ে হুগো বুমোসকে প্রথম একাদশে খেলানো নিয়ে রীতিমতো সংশয়ে রয়েছেন এটিকে মোহনবাগান কোচ জুয়ান ফেরান্দো। কারণ, কাউকোর যা পারফরম্যান্স, তাতে চোট থেকে সদ্য সেরে ওঠা বুমোসকে হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে প্রথম একাদশে রাখাটা রীতিমতো ঝুঁকির হয়ে যেতে পারে। যদিও শুক্রবার বিকেলে দলের অন্যান্য ফুটবলারদের সঙ্গে একইরকম ভাবে কঠিন অনুশীলন করেছেন বুমোস। সেক্ষেত্রে দরকার পড়লে পরেও তাঁকে নামাতে পারেন সবুজ-মেরুন কোচ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × five =