বিদ্যালয়ে পরিচালন কমিটি গঠনে তৃণমূলে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অভিযোগ, উত্তপ্ত খাগড়াগড়

নিজস্ব প্রতিবেদন, খাগড়াগড়: ফের খবরে খাগড়াগড়, বিদ্যালয়ের পরিচালন কমিটি গঠনকে ঘিরে ফের তৃণমূলে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অভিযোগ। উত্তপ্ত বর্ধমানের খাগড়াগড় এলাকা।
স্থানীয়দের অভিযোগ, এলাকার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালন কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তৃণমূল কংগ্রেসের দু’টি গোষ্ঠী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। দু’পক্ষের মধ্যে মারধরের ঘটনায় উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয় বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় বর্ধমান থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী ও র‌্যাফ।
জানা গিয়েছে, সরাইটিকর গ্রাম পঞ্চায়েতের ৯০ নম্বর সংসদের সদস্য শংকর রাজবংশী ও ৮৯ নম্বর সংসদের সদস্য শেখ ফিরোজের অনুগামীদের মধ্যে বিরোধ থেকেই এই সংঘর্ষের ঘটনা। শেখ ফিরোজের অনুগামী তথা তৃণমূলের বুথ সভাপতি মহম্মদ হোসেনের অভিযোগ, এলাকার দখল নিতেই মহম্মদ ইনশান সহ আরও বেশ কয়েকজনের নেতৃত্বে ৪০ জনের একটি দুষ্কৃতী দল রড, লাঠি, তির, বল্লম, টাঙ্গি নিয়ে তাঁদের ওপর হামলা চালায়। তাঁদের ৩ জন কর্মী আহত হয়। তাঁরা এলাকায় বিভিন্ন ধরনের ভালো কাজ করেছেন, যেটা অন্য গোষ্ঠীর সহ্য হচ্ছে না। ওরা এলাকায় তোলাবাজি করতে পারছে না, তাই মরিয়া হয়ে এলাকার দখল নিতেই এই আক্রমণ করেছে। ওরা দুষ্কৃতী, ওদের কোনও রাজনৈতিক পরিচয় আছে বলে জানা নেই।
অন্যদিকে ৯০ নম্বর সংসদের তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য শংকর রাজবংশীর অভিযোগ, তাঁকে বাদ দিয়ে খাগড়াগড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালন কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই বিষয়ে তিনি শেখ ফিরোজের কাছে কয়েকজনকে নিয়ে স্কুলে জানতে যান কেন তাঁকে বাদ দেওয়া হল? সেই সময়কার মতো সমস্যা মিটে গেলেও, সন্ধ্যা নাগাদ তাঁর কয়েকজন কর্মীকে শেখ ফিরোজের নেতৃত্বে ব্যাপক মারধর করা হয়। এলাকায় তোলাবাজি করতে চাইছে শেখ ফিরোজ ও তাঁর অনুগামীরা। কিন্তু তাঁরা বাধা দেওয়াতেই এই আক্রমণ বলে অভিযোগ শংকর রাজবংশীর। এলাকায় উত্তেজনা থাকায় নতুন করে যাতে কোনও রকম অশান্তি না ছড়ায় তার জন্য এলাকায় পুলিশ পিকেট বসানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *