অবরোধ বিক্ষোভে সামিল আশাকর্মীরা, অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সাহায্যে পোলিও সামাল স্বাস্থ্য দপ্তরের

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাঁকুড়া: নিজেদের ভাতা বৃদ্ধি, সবেতন ছুটি সহ বিভিন্ন দাবিতে গত শুক্রবার থেকে লাগাতার কর্মবিরতি শুরু করেছেন রাজ্যের আশাকর্মীরা। সেই কর্মবিরতির মাঝে রবিবার রাজ্যজুড়ে পালস পোলিও কর্মসূচি করতে রীতিমতো নাকাল হতে হল স্বাস্থ্য দপ্তরকে। নজিরবিহীন ভাবে অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী ও একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্মীকে যুক্ত করে কোনও ক্রমে কর্মসূচি সামাল দিল স্বাস্থ্য দপ্তর।
ভাতা বৃদ্ধি, সবেতন ছুটি, অ্যান্ড্রয়েড ফোন দেওয়া সহ বিভিন্ন দাবিতে রাজ্যের আশাকর্মীরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু সেই আন্দোলনে সাড়া দেয়নি রাজ্য ও কেন্দ্র কোনও সরকারই। বাধ্য হয়ে নিজেদের দাবিগুলিকে সামনে রেখে শুক্রবার থেকে রাজ্যের হাজার হাজার আশাকর্মী কর্মবিরতি শুরু করেন। আশাকর্মীরা গ্রামীণ স্বাস্থ্য পরিষেবার অন্যতম মেরুদণ্ড হওয়ায় এই কর্মবিরতি রীতিমতো বিপাকে ফেলে স্বাস্থ্য দপ্তরকে। গ্রামীণ ক্ষেত্রে প্রসূতি ও শিশু স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে বড়সড় সমস্যা তৈরি হওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয়।
এরই মাঝে রবিবার জাতীয় পোলিও টিকাকরণ কর্মসূচি করার নির্দেশ আসে স্বাস্থ্য দপ্তরের কাছে। মাথায় হাত পড়ে স্বাস্থ্য দপ্তরের। আশাকর্মীদের ছাড়া এই কর্মসূচি করতে রীতিমতো কালঘাম ছুটে যায় স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তাদের। বাধ্য হয়ে নজিরবিহীন ভাবে অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী ও বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সাহায্য নেওয়া হয়। অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীদের মোতায়েন করা হয় বিভিন্ন পালস পোলিও টিকাকরণ শিবিরে। তাঁদের দিয়েই কোনও ভাবে সামাল দেওয়া হয় পরিস্থিতি।
এদিকে দাবিপূরণ নিয়ে রাজ্য ও কেন্দ্র কোনও তরফেই কোনও সদুত্তর না মেলায় কর্মবিরতির পাশাপাশি রবিবারও রাস্তায় নেমে আন্দোলনে সামিল হতে দেখা যায় আশাকর্মীদের। এদিন দুপুরে আশাকর্মীরা কোতুলপুরে বিষ্ণুপুর কোতুলপুর রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। কিছুক্ষণ ধরে অবরোধ চলার পর কোতুলপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে অবরোধ তুলে দিলে আশাকর্মীরা গোগড়া গ্রামীণ হাসপাতাল চত্বরে জমায়েত করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *