অসমে এনকাউন্টারে মৃত ধর্ষণে অভিযুক্ত

২৪ ঘণ্টার মধ্যে দু’টি আলাদা এনকাউন্টারে অসমে (Assam) মৃত্যু হল ধর্ষণে (Rape) অভিযুক্ত দুই ব্যক্তির। জানা গিয়েছে, পুলিশ হেপাজত থেকে পালাতে গিয়েই মৃত্যু হয় ওই দুই অভিযুক্তর। মঙ্গলবার রাত এবং বুধবার সকালে ঘটনা দুটি ঘটেছে গুয়াহাটি ও উদলগিরিতে।

উদলগিরিতে এনকাউন্টারে মারা যায় ৩৮ বছরের রাজেশ মুন্ডা। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, সাত বছরের এক শিশুকন্যাকে ধর্ষণ করে খুন করার। সে পুলিশ হেপাজত থেকে পালানোর চেষ্টা করলে তাকে গুলি করা হয়। এরপর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে আরেক অভিযুক্ত গুয়াহাটির বিকি আলিকে ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তাকে ঘিরে ছিল পুলিশ বাহিনী। অপরাধের ঘটনার পুনর্নির্মাণের উদ্দেশ্যেই তাকে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। এরপরই সে ঝাঁপিয়ে পড়ে পুলিশের উপরে। পুলিশ গুলি চালালে সেখানেই লুটিয়ে পড়ে বিকি। গুয়াহাটি মেডিক্যাল কলেজ হাসাতালের সুপারিটেন্ডেন্ট অভিজিৎ শর্মা জানিয়েছেন, বিকির শরীরে চারটি ক্ষতচিহ্ন দেখা গিয়েছে। এর মধ্যে একটি বুকে ও বাকিগুলি পিঠে। তিনি জানিয়েছেন, রাত ১টা নাগাদ বিকিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়।

বিকির বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, ১৬ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণের। সে একা নয়, তার সঙ্গে আরও তিনজন ছিল। মঙ্গলবারই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রথমে ওই কিশোরীকে গণধর্ষণ ও পরে তাকে ধর্ষণের ঘটনা দেখিয়ে ব্ল্যাকমেল করে ফের তার শ্লীলতাহানির অভিযোগ রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 + five =