গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু

হাওড়া : গৃহবধূকে বিষ খাইয়ে খুনের অভিযোগ উঠলো শ্বশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে। শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে মারধর করত বলে অভিযোগ গৃহবধূর বাপের বাড়ির। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটে হাওড়ার জগদীশপুরে। অসুস্থ্য অবস্থায় গৃহবধূ পিঙ্কিকে হাওড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। এরপর দুই পক্ষের বাড়ির লোকজনের মধ্যে প্রথমে বচসা এবং পরে মারধরের ঘটনা ঘটে।

জগদীশপুরের কয়ালপাড়ার বাসিন্দা পিঙ্কি দেবনাথের সঙ্গে শুভঙ্কর দেবনাথের প্রেম করে বিয়ে হয়। পিঙ্কির পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, টাকার জন্য তাদের মেয়েকে বিয়ের পর থেকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত শ্বশুরবাড়ির লোক। বাপের বাড়ির কাউকে দেখা করতে দিত না পিঙ্কির স্বামী। স্থানীয় এক গেঞ্জির কারখানাতে কাজ করতো সে। রাত্রে নেশা করে বাড়ি ফিরে প্রতিদিন মারধরের ঘটনা ঘটতো। পিঙ্কিকে বিষ খাইয়ে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ করে মৃতার পরিবারের লোকজন।

পিঙ্কিকে একটি ফোন কিনে দিয়েছিল তার মা। ওই ফোনেই যোগাযোগ রাখত সে বাপের বাড়ির লোকেদের সঙ্গে। মৃতার মা পূর্ণিমা অধিকারী বলেন, তার মেয়েকে তার শ্বাশুড়ি, ননদ মিলে মেরে ফেলেছে। মৃতার পরিবারের পক্ষ থেকে লিলুয়া থানায় লিখিত অভিযোগ জানানো হয়েছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে লিলুয়া থানার পুলিশ। সম্ভাব্য সবদিক খতিয়ে দেখে তদন্ত শুরু করেছে লিলুয়া থানার পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × two =