৩ জনের খুনে ধৃত দু’জনকে ঘটনাস্থলে এনে জলাশয়ে তল্লাশি, দু’টি মোবাইল, লাফদড়ি উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদন, কাঁকসা: পানাগড়ের রেলপাড়ে সারদাপল্লি এলাকায় ৩ জনের খুনের ঘটনায় তদন্তে নেমে ঘটনাস্থলের পাশের জলাশয়ে তল্লাশি চালিয়ে রবিবার সকালে দু’টি মোবাইল উদ্ধার করে পুলিশ। পাশাপাশি একটি লাফদড়ি উদ্ধার হয়। এদিন ফের ঘটনাস্থলে ধৃত রিঙ্কি বিশ্বকর্মা ও প্রসেনজিৎ বিশ্বকর্মাকে নিয়ে আসা হয়। ঘটনাস্থলে আসেন কাঁকসার এসিপি সুমন কুমার জয়সওয়াল সহ পুলিশ আধিকারিকরা।
পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনার দিন লাফদড়ি দিয়ে সিমরনকে খুন করা হয়। একই ভাবে তাঁর দিদা ও মামাকেও খুন করে ওই দড়ি বাড়ির পাশে ফেলে দেন প্রসেনজিৎ। প্রমাণ লোপাট করতে তাঁদের ৩ জনের মোবাইলও জলাশয়ে ফেলে দেওয়া হয়। তাঁদের মধ্যে সিমরনের কাকিমা রিঙ্কি বিশ্বকর্মা ও তাঁদের প্রতিবেশী প্রসেনজিৎ বিশ্বকর্মাকে জেরা করে খুনের ঘটনা জানতে পারে পুলিশ। ওই দু’জনকে নিয়ে শনিবার খুনের ঘটনার পুনর্র্নির্মাণ করে পুলিশ আধিকারিকরা। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে ঘটনার দিন মৃত ৩ জনের মোবাইল বাড়ির পাশে জলাশয়ে ফেলে দেওয়া হয়। তার সঙ্গে যে লাফদড়ি দিয়ে তাঁদের হত্যা করা হয়েছিল সেটাও ফেলা হয়েছে। প্রমাণ লোপাট করতেই পরিকল্পনা করে এই খুন করে ধৃতরা। সেইমতো শনিবার থেকে ওই জলাশয়ের জল পাম্পে করে শুকিয়ে সেখানে তল্লাশি চালিয়ে দু’টি মোবাইল উদ্ধার হয়। আরও একটি মোবাইল উদ্ধারের জন্য তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। রবিবার দুপুরে ফের ধৃত দু’জনকে নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন কাঁকসার এসিপি সুমন কুমার জয়সওয়াল।
প্রসঙ্গত, গত নভেম্বর মাসের ১০ তারিখ পানাগড়ের রেলপাড়ে এক ব্যক্তির বাড়ি থেকে ৩ জনের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। মৃতরা হলেন সিমরন বিশ্বকর্মা, তাঁর দিদা সীতা দেবী ও মামা সোনু বিশ্বকর্মা। সিমরনের বাবা ধনঞ্জয় বিশ্বকর্মা স্ত্রীকে নিয়ে অসম বেড়াতে গিয়েছিলেন। বাড়িতে ওই দিন সিমরন ছিলেন এবং ঝাড়খণ্ড থেকে তাঁর দিদা ও মামা বেড়াতে এসেছিলেন তাঁদের বাড়িতে। ঘটনার দিন সোনু বিশ্বকর্মাকে ঘরের উঠোনে বাথরুমের পাশে ও সিমরন এবং তাঁর দিদার দেহ দু’টি পৃথক ঘরেই বিছানায় উদ্ধার হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে কাঁকসা থানার পুলিশ পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করার পাশাপাশি ঘটনার তদন্তে নেমে ধারাবাহিক ভাবে মোট ৩ জনকে গ্রেপ্তার করে।
পুলিশ ও স্থানীয় জানা গিয়েছে, সিমরনের কাকিমা রিঙ্কি বিশ্বকর্মার সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল পাশের বাড়ির প্রসেনজিতের সঙ্গে। মাসখানেক আগে সিমরনের কাকিমার নগ্ন ছবি ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। তাই নিয়েই শুরু হয় সিমরনের সঙ্গে তাঁর কাকিমার গণ্ডগোল। সম্ভবত সেই কারণেই সিমরনকে সরাতেই তাঁকে খুনের পরিকল্পনা করেন রিঙ্কি বিশ্বকর্মা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *