সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা অভিষেকের, দুই বিচারপতির বিরুদ্ধে আবেদন ফেরাল শীর্ষ আদালত

সুপ্রিম কোর্টে জোর ধাক্কা খেলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় ও অমৃতা সিনহার মন্তব্যের বিরোধিতায় যে আবেদন করেছিলেন তিনি, সেই আবেদন ফিরিয়ে দিল শীর্ষ আদালত।  সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ এই মুহূর্তে আবেদনের কোন গ্রহণযোগ্যতা নেই’।

বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। পাঁচ দফা অভিযোগ এনে অভিষেক আবেদন জানিয়েছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক। সেই সঙ্গে বিচারপতি অমৃতা সিনহার এজলাস থেকে নিয়োগ দুর্নীতি মামলার সরানোর আর্জি জানিয়েছিলেন তিনি।

সূত্রের খবর, ওই মামলা খারিজ করে নতুন করে আর্জি জানানোর কথা জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। অভিষেকের আইনজীবী সঞ্জয় বসু বলেন, ‘নতুন করে অভিষেককে আবেদন করার কথা জানিয়েছে শীর্ষ আদালত।’

বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় আদালতের বাইরে অভিষেক সম্পর্কে বেশ কিছু মন্তব্য করেছিলেন। বলেছিলেন, অভিষেক তাঁর সম্পত্তির হিসাব সোশাল মিডিয়ায় পোস্ট করুন। বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের সেই মন্তব্য নিয়ে রাজনৈতিক স্তরে প্রশংসা ও সমালোচনা দুই হয়েছিল। বিচারপতির পদ থেকে তাঁর ইস্তফা দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছিলেন সাংসদ ও আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তার পর অভিষেক মামলা করেছিলেন সুপ্রিম কোর্টে।একই সঙ্গে তাঁর দাবি ছিল, নিয়োগ সংক্রান্ত মামলা বিচারপতি অমৃতা সিনহার এজলাস থেকে সরানো হোক। ওই মামলা শোনার জন্য নতুন বেঞ্চ গঠন করার ব্যাপারে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিকে নির্দেশ দিক সুপ্রিম কোর্ট।

নিয়োগ মামলায় বিচারপতি সিনহাই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংস্থা লিপস অ্যান্ড বাউন্ডসের সব ডিরেক্টর তথা অধিকর্তার সম্পত্তির হিসাব পেশ করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেই সঙ্গে শুনানি চলাকালীন তিনি তাঁর পর্যবেক্ষণে বলেছিলেন, দেখা যাচ্ছে অধিকাংশ সম্পত্তি ২০১৪ সালের পর হয়েছে। এত কম সময়ে এত সম্পত্তি করার জন্য আয়ের উৎস কী ছিল? তা কি তদন্ত করে দেখেছে তদন্তকারী এজেন্সি!

এর আগে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দায়ের করা এক মামলাতেই বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাস থেকে নিয়োগ মামলা সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সেই মামলা চলে যায় বিচারপতি অমৃতা সিনহার কাছে। অভিষেক নতুন করে আবার কবে আবেদন জানান, সেদিকেই নজর রাখছে রাজনৈতিক মহল।

সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশ সবিস্তারে ব্যাখ্যা করেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র তথা রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ। এক্স হ্যান্ডলে তিনি জানিয়েছেন, শীর্ষ আদালতে অভিষেকের কোনও পিটিশন খারিজ হয়নি। বিচারপতির মন্তব্য সংক্রান্ত মামলায় আগের রায়ের উপর একটি মডিফায়েড অ্যাপ্লিকেশন দিয়েছিলেন অভিষেকের আইনজীবী। তার পরিপ্রেক্ষিতে রেজিস্ট্রার জানিয়েছেন মডিফায়েড অ্যাপ্লিকেশন নয়, ফ্রেশ কজ অফ অ্যাকশনের পিটিশন দিতে। সেটা করা হচ্ছে। বিভ্রান্তি কাম্য নয়।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *