দশম দিনে সাময়িক যুদ্ধবিরতির ঘোষণা রাশিয়ার

ইউক্রেন(Ukraine)-র বিরুদ্ধে যুদ্ধ থামানোর অনুরোধ করা হচ্ছিল বিগত দিন ধরেই, এবার সেই প্রস্তাবই মেনে নিল রাশিয়া। অবশেষে সাময়িক যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করল রাশিয়া। সাধারণ নাগরিকদের উদ্ধারকার্যের জন্য সাময়িক যুদ্ধবিরতির ঘোষণা করা হল। রাশিয়ার তরফে জানানো হয়েছে, সাম্প্রতিক বৈঠকে দুই দেশের তরফেই যে মানবিক করিডর (Humanitarian Corridor) তৈরির প্রস্তাবে সম্মতি জানানো হয়েছিল, সেই প্রস্তাব মেনেই সাময়িক যুদ্ধ বিরতির ঘোষণা করা হয়েছে।

রাশিয়ার একটি সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন সকাল ৬টা নাগাদ (ভারতীয় সময় অনুযায়ী সকাল সাড়ে ১১টা) রাশিয়ার তরফে যুদ্ধ বিরতির ঘোষণা করা হয়। ইউক্রেন ও অন্যান্য দেশের সাধারণ নাগরিকদের উদ্ধারের জন্য এই সাময়িক যুদ্ধবিরতির (Ceasefire) ঘোষণা করা হয়েছে। রাশিয়ার সংবাদসংস্থা স্পুটনিকের তরফে জানানো হয়েছে, এদিন সকালে রাশিয়া (Russia) সাময়িক যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে। আপাতত সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার জন্য এই বিরতি ঘোষণা করা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে কোনও হামলা চালাবে না রুশ সেনা। পাল্টা প্রত্যাঘাত করতে পারবে না ইউক্রেনও।

প্রথম বৈঠক বিশেষ ফলপ্রসূ না হলেও, চলতি সপ্তাহেই বেলারুশের সীমান্তে বৈঠকে বসে দুই দেশ। সেখানেই দেশের সাধারণ মানুষদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার স্বার্থে মানবিক করিডর তৈরির প্রস্তাব দেওয়া হয় এবং দুই দেশই সেই প্রস্তাবে রাজি হয়। ওই দিন মানবিক করিডর নিয়ে বিশেষ কোনও সিদ্ধান্ত গ্রহণ না করা হলেও, এদিন সকালে জানানো হয় সাময়িক যুদ্ধ বিরতির ঘোষণা করা হচ্ছে। সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার জন্য এই যুদ্ধবিরতি জারি করা হচ্ছে। এই সময়ের মধ্যেই সংঘর্ষস্থলগুলি থেকে সাধারণ নাগরিকদের উদ্ধার করে বের করে আনা হবে।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, মারিউপোল ও ভলনোভাকায় এই যুদ্ধবিরতির ঘোষণা করা হয়েছে। সংবাদ সংস্থা এএফপি-র তথ্য অনুযায়ী জানা গেছে যে, আজভ সাগরের তীরের বন্দর শহর মারিউপোলের বাসিন্দাদের দেশ ছাড়ার সুযোগ দিয়ে সাময়িক ভাবে এই ঘোষণা করল রাশিয়া। মারিউপোলের পাশাপাশি ভলনোভাখা শহরেও জারি হয়েছে এই যুদ্ধবিরতি। দশম দিনে এসে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করা হল রাশিয়ার পক্ষ থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen − five =