ওয়াটসনের পর এবার পন্থের ঔদ্ধত্যকে অযৌক্তিক বলে বিস্ফোরণ ঘটালেন পন্টিং

কলকাতা নাইট রাইডার্সকে চার উইকেটে হারালেও, রাজস্থান রয়্যালস ম্যাচের কালো অধ্যায় এখনও দিল্লি ক্যাপিটালসকে তাড়া করে বেড়াচ্ছে। বলা ভাল দলের অধিনায়ক ঋষভ পন্থের  ‘কীর্তি’ মেনে নিতে পারছে না টিম ম্যানেজমেন্ট। সেটাই ফের বুঝিয়ে দিলেন রিকি পন্টিং। কারণ নাইটদের বিরুদ্ধে ম্যাচ চলার সময় দিল্লির হেড কোচকে সেই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে, অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, পুরো ব্যাপারটা একেবারে অযৌক্তিক। বেশ বুঝিয়েই দিলেন তিনি পন্থের ঔদ্ধত্যকে মোটেও প্রশ্রয় দিচ্ছেন না।

পন্টিং বিস্ফোরণ ঘটিয়ে বলেন, “পুরো ব্যাপারটাই তো ভুলে ভরা। আম্পায়ার ভুল করেছে। সেটা জানি। কিন্তু মানিয়ে নেওয়া ছাড়া অন্য উপায় আছে কি! আমাদের দলের অধিনায়ক এবং সহকারী কোচেরও অনেক ভুল আছে। ওদের জন্য ম্যাচ সাময়িক বন্ধ হয়েছিল। গোটা ক্রিকেট দুনিয়া সেটা দেখেছে। এটা মোটেও ভাল উদাহরণ নয়। তাই আমি হেড কোচ হিসেবে একেবারেই খুশি নই। গর্বিত হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। তাই ওদের সঙ্গে এই ইস্যু নিয়ে আলোচনাও হয়েছে।”

রাজস্থানের বিরুদ্ধে শেষ ওভারে দিল্লির জয়ের জন্য ৩৬ রান দরকার ছিল। সেই ওভারে ওবেড ম্যাকওয়ের প্রথম তিন বলে নাগাড়ে তিনটি ছক্কা হাঁকান রোভম্য়ান পাওয়েল। তৃতীয় বলটি ছিল ফুলটস। সেই ডেলিভারি কোমরের উপরের ছিল বলে দিল্লির তরফে দাবি জানানো হলেও, আম্পায়ার নো বল দেননি। তৃতীয় বল নো দেওয়ার পরেই পাওয়েল এবং কুলদীপ যাদবকে মাঠ থেকে বেরিয়ে আসার নির্দেশ দেন দিল্লি অধিনায়ক। দুই ব্যাটার মাঠের বাইরে চলে যেতে চাইলে তাঁদের আটকান মাঠের আম্পায়াররা। তাঁদের বোঝান এ ভাবে ম্যাচ ছেড়ে চলে যাওয়া যায় না। আম্পায়ারদের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। পন্থ অবশ্য সমানে মাঠের বাইরে থেকে দুই ব্যাটারকে চলে আসার নির্দেশ দিতে থাকেন। এ সময় হঠাৎ করেই সবাইকে চমকে গিয়ে মাঠে ঢুকে পড়েন প্রবীণ আমরে। পন্থ তাঁর পিঠে ধাক্কা দিয়ে মাঠে যাওয়ার নির্দেশ দেন। এরপর মাঠে গিয়ে আম্পায়ারদের সঙ্গে তর্কে জড়ান ভারতের প্রাক্তন টেস্ট ক্রিকেটার। বেশ কিছুক্ষণ বন্ধ থাকে খেলা। তবে শেষমেশ লাভের লাভ কিছুই হয়নি। ১৫ রানে ম্যাচ হেরে যায় দিল্লি এবং বলটিকেও নো বল ঘোষণা করা হয়নি।

মাঠে আনস্পোর্টিং কাণ্ডের জন্য পন্থের ম্যাচ ফি-র ১০০ শতাংশ কেটে নিয়েছিল আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। সেই ঘটনায় জড়িত থাকার জন্য দলের জোরে বোলার শার্দূল ঠাকুরের ম্যাচ ফি-র ৫০ শতাংশ কেটে নেওয়া হয়েছিল। তবে দলের সহকারী ব্যাটিং কোচ প্রবীণ আমরে বড় শাস্তি পেয়েছিলেন। ম্যাচ ফি-র ১০০ শতাংশ কেটে নেওয়ার পাশাপাশি ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটারকে এক ম্যাচের জন্য নির্বাসিত করা হয়েছে। ফলে ২৮ এপ্রিল নাইটদের বিরুদ্ধে ডাগ আউটে বসতে পারেননি তিনি।

যদিও পন্টিং এই অক্রিকেটীয় ঘটনার জন্য কোভিড পরিস্থিতিকেই দায়ী করেছেন তিনি। পন্টিং যোগ করেন, “গত কয়েক সপ্তাহ আমাদের খুব কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে কাটাতে হয়েছে। একাধিক ক্রিকেটার ও সাপোর্ট স্টাফ কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিল। ফলে অনেকদিন নিভৃতবাসে থাকতে হয়। এরমধ্যে রাজস্থানের বিরুদ্ধে ম্যাচটায় টানটান পরিস্থিতি তৈরি হয়ে যায়। তাই হয়তো মেজাজ হারিয়ে পন্থ এমন কাজ করেছিল। যদিও আমি সেটা সমর্থন করিনা।” সেই ম্যাচের শেষেই সহকারী কোচ শেন ওয়াটসন দলের অধিনায়কের প্রকাশ্যে নিন্দা করেছিলেন। এ বার সেই তালিকায় জুড়ে গেল হেড কোচের নাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × one =