ছাঁটাই ঈশান-শ্রেয়স, বোর্ডের চুক্তিতে রিঙ্কু-মুকেশরা

বুধবার সন্ধেয় কেন্দ্রীয় চুক্তির তালিকা প্রকাশ করল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। সেখান থেকে নির্মম ভাবে ছেঁটে ফেলা হল ঈশান কিষাণ ও শ্রেয়স আইয়ারকে। বোর্ডের চুক্তিতে জায়গা হল না এই দুই অবাধ্য ক্রিকেটারের। এর মধ্যে দিয়ে বোর্ড বুঝিয়ে দিল, কোনও ক্রিকেটারই নিয়মের উর্ধ্বে নন। তা তিনি যত বড়ই তারকা হোন না কেন! বোর্ডের কেন্দ্রীয় বার্ষিক চুক্তিতে একঝাঁক নতুন মুখ। রয়েছেন রিঙ্কু সিং, মুকেশ কুমাররা। সর্বোচ্চ গ্রেডে রয়েছেন ৪ জন ক্রিকেটার। তাঁরা হলেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, জসপ্রীত বুমরা, রবীন্দ্র জাডেজা।

বোর্ডের তরফে ই-মেলে কেন্দ্রীয় চুক্তির তালিকা পাঠানো হয়েছে। এই চুক্তিতে সর্বোচ্চ গ্রেড অর্থাৎ A+ তে রয়েছেন সব ফরম্যাটেই অধিনায়ক রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, জসপ্রীত বুমরা এবং রবীন্দ্র জাডেজা। এর পরের ধাপ, গ্রেড এ-তে রয়েছেন ৬ জন ক্রিকেটার। তাঁরা হলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন, মহম্মদ সামি, মহম্মদ সিরাজ, লোকেশ রাহুল, শুভমন গিল এবং হার্দিক পান্ডিয়া।

গ্রেড বি-তে রয়েছেন পাঁচ জন। তাঁরা হলেন-সূর্যকুমার যাদব, ঋষভ পন্থ, কুলদীপ যাদব, অক্ষর প্যাটেল এবং যশস্বী জয়সওয়াল। প্রথম চুক্তিতেই সরাসরি গ্রেড বি-তে তিন ফরম্যাটেই খেলা যশস্বী।

গ্রেড বি-তে রয়েছেন পাঁচ জন। তাঁরা হলেন-সূর্যকুমার যাদব, ঋষভ পন্থ, কুলদীপ যাদব, অক্ষর প্যাটেল এবং যশস্বী জয়সওয়াল। প্রথম চুক্তিতেই সরাসরি গ্রেড বি-তে তিন ফরম্যাটেই খেলা যশস্বী। গ্রেড সি-তে রয়েছেন ১৫ জন ক্রিকেটার। টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ান ডে সীমিত সুযোগেই নজর কেড়েছেন রিঙ্কু সিং। তিনি যে শুধু আইপিএলের প্লেয়ার নন, নীল জার্সিতে প্রমাণ করে দিয়েছেন। আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রথম বার রোহিত তাঁকে উল্টোদিক থেকে দেখেন। রিঙ্কুর পরিণত পারফরম্যান্সে মুগ্ধ হয়েছিলেন রোহিত শর্মা। তেমনই টি-টোয়েন্টিতে নজর কাড়া কিপার ব্যাটার জীতেশ শর্মাকেও বোর্ডের চুক্তিতে যোগ করা হয়েছে।

গ্রেড সি-তে যাঁরা রয়েছেন-রিঙ্কু সিং, তিলক ভার্মা, ঋতুরাজ গায়কোয়াড়, শার্দূল ঠাকুর, শিবম দুবে, রবি বিষ্ণোই, জীতেশ শর্মা, ওয়াশিংটন সুন্দর, মুকেশ কুমার, সঞ্জু স্যামসন, অর্শদীপ সিং, শ্রীকার ভরত, প্রসিধ কৃষ্ণা, আবেশ খান, রজত পাতিদার।

বোর্ডের ভাবনায় আরও ক্রিকেটার রয়েছেন। তবে ক্রাইটেরিয়া মিট না করায় এখনই তাঁদের যোগ করা যায়নি। চুক্তিতে আসার ক্ষেত্রে অন্তত তিনটি টেস্ট অথবা ৮টি ওডিআই বা ১০টি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলতে হয়। উদাহরণ হিসেবে বোর্ডের তরফে বলা হয়েছে, ধ্রুব জুরেল এবং সরফরাজ খান যেহেতু দুটি করে টেস্ট খেলেছেন, তাঁরা যদি ধরমশালা টেস্টে খেলেন, তাঁদেরও গ্রেড সি-তে যোগ করা হবে। বোর্ডের নির্বাচন কমিটি আরও কয়েকজন ক্রিকেটারকে বিবেচনায় রেখেছে। তাঁরা হলেন-আকাশ দীপ, বিজয় কুমার বিশাখ, উমরান মালিক, যশ দয়াল এবং বিদ্বথ কাভেরাপ্পার মতো পেসারদের আলাদা চুক্তিতে রাখার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *