মন্ত্রী রথীন ঘোষের আশ্বাসে প্রত্যাহার রাজ্যের রেশন ধর্মঘট

মন্ত্রী রথীন ঘোষের আশ্বাসে অবশেষে প্রত্যাহার করা হল রাজ্যে রেশন ধর্মঘট। ফলে শনিবার থেকে ফের বাংলায় রেশন পরিষেবা স্বাভাবিক হতে চলেছে। সূত্রে খবর, ডিলারদের কমিশন বাড়ানোর দাবি নিয়ে রিপোর্ট তৈরি করে নবান্নে পাঠাচ্ছেন মন্ত্রী। প্রসঙ্গত, একাধিক দাবিতে গত পয়লা জানুয়ারি থেকে দেশজুড়ে রেশন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিল অল ইন্ডিয়া ফেয়ার প্রাইস শপ অ্যাসোসিয়েশন। সংগঠনের তরফে যে সমস্ত ইস্যুতে এই ধর্মঘট ডাকা হয়েছিল তা অধিকাংশই কেন্দ্রের নীতির বিরুদ্ধে৷ রাজ্য সরকারের তরফে আগেই সংগঠনকে বলা হয়েছিল, এই সব ইস্যুর সঙ্গে রাজ্যের কোনও সম্পর্ক নেই। তাই যেন প্রত্যাহার করে নেওয়া হয় এই রেশন ধর্মঘট। অবশেষে শনিবার সেই রেশন ধর্মঘট প্রত্যাহার হল রাজ্য থেকে৷

তবে এবার রাজ্যের ডিলারদের তরফ থেকে বিভিন্ন অসুবিধার কথা জানিয়ে পাঠানো হচ্ছে চিঠি। যে সকল ইস্যুতে রেশন ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছিল তার মধ্যে রয়েছে,

১. নেটওয়ার্ক জনিত সমস্যা, সার্ভার জনিত সমস্যা অথবা আঙুলের ছাপের অমিলের কারণে রেশন উপভোক্তাদের সমস্যা হচ্ছে।

২. খাদ্যশস্যের কুইন্টাল পিছু ১ কিলো করে হ্যান্ডেলিং লস দিতে হবে।

৩. কোভিড পরবর্তী পরিস্থিতির জন্য রেশন দোকানদারদের নূন্যতম ৫০ হাজার টাকা আয় নিশ্চিত করতে হবে।

৪. চটের বস্তায় এফসিআই থেকে খাদ্যশস্য দিতে হবে।

৫. দার্জিলিং জেলার মতো বাদ পড়া অন্যান্য জেলায় বর্ধিত কমিশন দিতে হবে।

৬. এনএফসিএ অনুযায়ী অগ্রিম কমিশন দিতে হবে।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী রথীন ঘোষের সঙ্গে দীর্ঘ সময় বৈঠক করেন ধর্মঘটি রেশন ডিলারদের প্রতিনিধিরা৷ এই বৈঠকের পর সংগঠনের তরফে অল ইন্ডিয়া সাধারণ সম্পাদক বিশ্বম্ভর বসু জানান, ‘আমরা আমাদের দাবি তুলে ধরে দেশজুড়ে রেশন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিলাম। বিভিন্ন রাজ্যে তা পালিত হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার ও রাজ্য সরকারের প্রতিনিধিরা আমাদের বারবার আলোচনায় বসার প্রস্তাব দিয়েছে৷ কেন্দ্রের আচরণের আমরা নিন্দা জানিয়েছি। রাজ্যের তরফে আমাদের অনুরোধ করা হয়, ধর্মঘট প্রত্যাহার করতে। তারা আমাদের দাবি কেন্দ্রের কাছে পাঠাবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *