সপ্তাহের শুরুতে রেশন দুর্নীতির  তদন্তে শহরজুড়ে ইডির তল্লাশি

সপ্তাহের শুরুতেই রেশন দুর্নীতি কাণ্ডে ফের একবার তৎপর হল কেন্দ্রীয় এজেন্সি। শহরের চার জায়গায় হানা দিল ইডি। সন্দেশখালির ঘটনা নিয়ে এমনিতেই উত্তেজনা বহাল আছে বঙ্গে। সোমবার সকালেই শঙ্কর আঢ্যের সল্টলেকের অফিস সহ চার জায়গায় হানা দিয়েছে ইডি।
রেশন দুর্নীতি কাণ্ডে রাজ্যের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের গ্রেপ্তারের পর মামলার তদন্তে উঠে আসে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। বালু-বাকিবুরের মাঝেই বনগাঁ পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্যের নাম নিয়েও চর্চা শুরু হয়।  কেন্দ্রীয় এজেন্সির অনুমান, শুধু নিজে নন, সপরিবারে রেশন দুর্নীতিতে জড়িত ছিলেন বনগাঁ পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান। আর সেই কারণে তাঁর পরিবারকেও তলব করা হয়। এবার তাঁর অফিস সহ একাধিক জায়গায় তল্লাশি শুরু করল ইডি। জানা গিয়েছে, শঙ্কর আঢ্যের সল্টলেকের চাটার্ড অ্যাকাউন্ট অফিস ছাড়াও চৌরঙ্গী এলাকার তাঁর আরও এক অফিসে হানা দিয়েছে তারা। চৌরঙ্গিতে শঙ্কর আঢ্যর অফিসের নাম ‘এসআর আঢ্য ফিনান্স প্রাইভেট লিমিটেডট’ সেখানেও তল্লাশি চালাচ্ছেন গোয়েন্দারা। এই কোম্পানির ডিরেক্টর শঙ্কর ও তাঁর স্ত্রী জ্যোৎস্না আঢ্য।
‘মারকুইস স্ট্রিট’-এ শঙ্করের আঢ্যর ফ্ল্যাটে হানা দেয ইডি। জানা গিয়েছে, ৫ বছর আগেও সস্ত্রীক শঙ্কর আঢ্য থাকতেন এখানে। এই এলাকায় শঙ্কর আঢ্যর বৈদেশিক মুদ্রা বিনিময়ে নামডাক ছিল। ‘মারকুইস স্ট্রিট’-এ ইডির অপর একটি দল ‘আসিফা’ নামে একটি গেস্ট হাউজে তল্লাশি চালায়।
ইডি সূত্রে খবর, কলিন স্ট্রিটে  অবস্থিত ‘ত্রিনয়নী ফোর এক্স প্রাইভেট লিমিটেডের’ অফিসেও হানা। এই কোম্পানির সঙ্গে যোগ রয়েছে শঙ্করের। গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন, এই কোম্পানির মাধ্যমেও নগদে টাকা জামা পড়েছে ভারতীয় মুদ্রায়। জানা গিয়েছে, এই অফিসটি শঙ্কর আঢ্যর ভ্রাতৃবধূ তানিয়া আঢ্য ও বাপ্পা রায়ের। তবে বাপ্পা রায়ের সঙ্গে শঙ্করের সম্পর্ক কী তা এখনও জানা যায়নি।
সল্টলেক সেক্টর ফাইভের আরএস মোড়ে সিটকো গ্লোবাল টাওয়ারের বারো তলায় সিএএসকেবি  চ্যাটার্ড অ্যাকাউন্টের অফিস রয়েছে। সেখানেও হানা দেয় ইডি। জানা গিয়েছে, এই সংস্থা খালি চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট নয়। ফিনান্সিয়াল অ্যাডভাইজার, ট্যাক্স অ্যাডভাইজার, এবং কোম্পানি তৈরি করতে পরামর্শ দেয়। কোম্পানির অন্যতম মালিক সুনীল ভার্মা এবং অরবিন্দ সিংহ। ভারতের বিভিন্ন শহরে এই সংস্থার শাখা আছে। দিল্লি, রাঁচি ব্যাঙ্গালোরে। এই রাজ্যের খড়গপুর , জঙ্গিপুরে শাখা আছে। তল্লাশির পাশাপাশি সংস্থার মালিক এবং কর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *