নতুন শিক্ষাবর্ষে থেকে আর কোন ছাত্রছাত্রীদের ভর্তি নেবে না রেল, পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়ে চিঠি চৈতালি তেওয়ারির

বুবুন মুখোপাধ্যায়, আসানসোল

আসানসোল ডিভিশনের অন্তর্গত রেলের স্কুলগুলিতে নতুন শিক্ষাবর্ষ থেকে আর কোনো ভর্তি নেওয়া হবে না ছাত্র-ছাত্রীদের। এই বিজ্ঞপ্তি পাওয়ার পর শিল্পাঞ্চল জুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। আসানসোলের সিনিয়র ডিভিশনাল পার্সোনাল অফিসার আসানসোল এবং অন্ডালের মোট দুটি হাইস্কুল এবং একটি হায়ার সেকেন্ডারি স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে এক চিঠি পাঠান এবং ওই চিঠিটি নোটিশ বোর্ডে ঝুলিয়ে দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। চিঠিতে পরিষ্কার করে বলে দেওয়া হয়েছে ২০২২-২৩ নতুন শিক্ষাবর্ষে স্কুলগুলিতে ছাত্র-ছাত্রীদের আর ভর্তি করা যাবে না। এইরকম সিদ্ধান্তের কারণ হিসাবে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, রেলের সমীক্ষা মত দেখা যাচ্ছে এই স্কুলগুলিতে অত্যন্ত কম সংখ্যক রেল কর্মীদের ছেলে মেয়েরা পড়ুয়া হিসেবে আছেন।

স্বাভাবিকভাবেই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে স্কুলগুলো চালানোর যুক্তি নেই। এই কারণে ওই নোটিশে বলা হয়েছে বর্তমানে যেসব ছাত্ররা এইসব বিদ্যালয় পড়ছে, তাদের অভিভাবকরা স্থানীয় অন্য কোনও বিদ্যালয় তাদের ছেলেমেয়েদের নিয়ে যেতে পারেন। সে ক্ষেত্রে রেলের একটি নির্দিষ্ট নির্দেশ অনুযায়ী ফর্মে আবেদন করতে হবে। এবং উল্লেখ করতে হবে কোন স্কুলে তারা তাদের সন্তানদের নিয়ে যেতে চান।

রেল কর্তৃপক্ষ ওই আবেদনগুলি সেইসব স্কুলে পাঠিয়ে দেবেন। তবে তাদের ভর্তি নেবে কি নেবে না তা সেই স্কুলের উপর নির্ভর করবে। এর জন্য রেল কোনো প্রতিশ্রুতি দেবে না। আসানসোল ডিভিশনের পক্ষ থেকে এই চিঠি পাওয়ার পর ছাত্রছাত্রী এবং শিক্ষকদের মধ্যে রীতিমতো আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। তারা ধরে নিয়েছেন স্কুল বন্ধ করে দেওয়ার জন্য এই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এই বিজ্ঞপ্তির বিরোধিতা করেছে রেলের বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন। তারা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন এই সিদ্ধান্ত বদল না হলে বৃহত্তর আন্দোলন করা হবে। এই বিষয় নিয়ে সরব হয়েছেন আসানসোল পৌরনিগমের বিজেপি কাউন্সিলর চৈতালি তেওয়ারি। তিনি রেল কর্তৃপক্ষ-কে এই নির্দেশিকা প্রসঙ্গে পুনরায় ভাবনা চিন্তা করার অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve − seven =