পাচারের জন্য অভিনব পদ্ধতি! লাক্সারি বাসে গোরু নিয়ে যাওয়ার দাবি, হতবাক প্রশাসন থেকে জনতা

নিজস্ব প্রতিবেদন, মেমারি: গোরু পাচারের জন্য অভিনব পদ্ধতি অবলম্বন করার অভিযোগ উঠল পাচারকারীদের বিরুদ্ধে। যা দেখে চমকে উঠেছেন প্রশাসন থেকে সাধারণ মানুষ সকলে। আগে দেখা যেত লরি করে বা ছোট পিকআপ ভ্যানে করে গোরু নিয়ে যাওয়া যত এদিক থেকে সেদিক। এমনকী কয়েক বছর আগে কন্টেনারের ভিতর থেকে মোষ উদ্ধার হয়েছিল এই রাজ্যেই। বর্তমানে পায়ে হেঁটে মাঝে মধ্যে গোরু নিয়ে পাচার করতেও দেখা গিয়েছে বলে দাবি। তবে পুলিশের কড়া নজরদারির জেরে এবার অভিনব উপায়ে গোরু পাচার করতে গিয়েও শেষ রক্ষা হল না।
লাক্সারি বাসের জানলার কালো কাঁচের বাইরে থেকে বোঝার উপায় নেই বাসে ভিতরে কারা যাচ্ছে। কয়েকটা খোলা কালো কাঁচের জানলার ভিতরে আবার মোটা কাপড়ের চাদর ঝুলছে। দুরন্ত গতিতে যাওয়ার সময় আচমকাই চালক ব্রেক কষতেই বাসের দরজা ঠেলে রাস্তায় ছিটকে পড়ল আস্ত একটা গোরু। আর তাতেই চক্ষু চড়ক গাছ প্রত্যক্ষদর্শীদের। এলাকাবাসী বাসটিকে দাঁড় করিয়ে ভিতরে উঁকি দিতেই হতবাক। গোটা বাস ভর্তি রয়েছে গোরু! যাতে না মাথা বেশি নড়াচড়া করতে পারে এমনকী বসতেও না পারে, তার জন্য গোরুগুলোর মুখের সঙ্গে মোটা দড়ি দিয়ে বাসের ওপরে লোহার রডে বেঁধে রাখা হয়েছে। কমপক্ষে ২২টি গোরুকে এভাবেই গাদাগাদি করে ঢুকিয়ে মেমারি শহরের ওপর দিয়ে বৃহস্পতিবার জিটি রোড ধরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।
চালকের অসতর্কতায় একটা গোরু পাবলিকের সামনে রাস্তায় পড়ে যাওয়ায় পাচারের এই ‘নয়া’ পন্থার বিষয়টি নজরে চলে আসে সকলের। স্থানীয়দের অনেকেরই একটাই প্রশ্ন, যাত্রীবাহী বাসে কী ভাবে গবাদি পশু পরিবহণ করা হচ্ছে। স্থানীয়রা বাসটিকে আটকে রাখে, মেমারি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রথমে বাসটিকে পার্কিংয়ে নিয়ে যায়। পরে রাস্তায় পড়ে যাওয়া গোরুটিকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু কিছু কাগজপত্র দেখার পর বাকি গোরু ভর্তি বাসটিকে ফের গন্তব্যের দিকে পাঠিয়ে দেয় পুলিশ।
জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ১০-৪০ নাগাদ মেমারি থানার অন্তর্গত মেমারির জিটি রোড ধরে বিহারের নম্বর প্লেট লাগানো একটি লাক্সারি স্লিপার কোচ বাস কলকাতার দিকে যাওয়ার সময় এই ঘটনা সামনে আসে। এই ঘটনায় জিটি রোডের ওপর অল্প কিছুক্ষণের জন্য যানজটেরও সৃষ্টি হয়। মেমারি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে এবং পুলিশের হস্তক্ষেপে স্বাভাবিক হয় যান চলাচল। গোরু নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে বাসের চালককে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। পরে গাড়িটিকে পুনরায় ছেড়ে দেওয়া হয় বলে জানা গিয়েছে।
এসডিপিও অভিষেক মণ্ডল ঘটনা প্রসঙ্গে জানান, ‘গোরুগুলোকে পান্ডুয়া হাটে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল বলে জানতে পেরেছি। তবে বাসে করে গোরু পরিবহণ বেআইনি। অ্যানিম্যাল ত্রু«য়েলটি অ্যাক্ট অনুযায়ী বাসটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ওসিকে জানানো হয়েছে। আগামী দিনে নজরদারি আরও জোরদার করা হচ্ছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *