হামাসের হাতে ধর্ষণের শিকার বহু ইহুদি মহিলা, রাষ্ট্রসংঘকে তোপ নেতানিয়াহুর

ইজরায়েলের বুকে বেনজির হামলা চালিয়েছিল হামাস জঙ্গিরা। ক্রমে ক্রমে প্রকাশ্যে এসেছে জঙ্গিদের নৃশংস অত্যাচারের ছবি। জেহাদিদের রোষ থেকে রেহাই পায়নি মহিলা ও শিশুরাও। ধর্ষণ ও অকথ্য যৌন নির্যাতনের শিকার হতে হয় অনেককেই। যা নিয়ে রাষ্ট্রসংঘ, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ও মহিলা সংগঠনগুলোর উপর তীব্র ক্ষোভ উগরে দিলেন ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। তাঁর সাফ প্রশ্ন, এখন আপনারা কোথায়? এখন সকলে চুপ কেন?

বুধবার তেল আভিভে এক সাংবাদিক সম্মেলনে নেতানিয়াহু বলেন, নারী অধিকার সংগঠন ও মানবাধিকার সংগঠনগুলোকে বলছি, আপনারা তো ইজরায়েলি মহিলাদের ধর্ষণের কথা শুনেছেন। কীরকম ভয়াবহ নৃশংসতার শিকার হয়েছেন তাঁরা, অঙ্গচ্ছেদ করা হয়েছে তাঁদের। এইসব কোনও কিছুই আপনাদের অজানা নয়। এখন আপনারা কোথায়? আমি আশা করছি, সভ্য সমাজের নেতারা, সরকার, বিভিন্ন দেশ সকলে এই নৃশংসতার বিরুদ্ধে সোচ্চার হবে। এদিন তাঁর সঙ্গে ছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়ভ গ্যালান্ট এবং মন্ত্রী বেনি গ্যান্টজ।

সংবাদ সংস্থা সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু আরও বলেন, হামাসের ডেরা থেকে মুক্ত পণবন্দি ও তাঁদের পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। হামাসের বর্বরতার ছবি তাঁরা তুলে ধরেছিলেন। এই ধরনের অত্যাচার বেনজির। এরপর তিনি ফের প্রশ্ন করেন, মহিলারা ইহুদি বলেই কি আপনারা চুপ করে রয়েছেন? কেন আপনারা গলা তুলে এর প্রতিবাদ করছেন না?
বলে রাখা ভালো, এর আগেও বহুবার হামাসের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক মহল ও রাষ্ট্রসংঘের অবস্থান নিয়ে নিন্দায় সরব হয়েছে ইহুদি দেশটি। গত নভেম্বর মাসে রাষ্ট্রসংঘে দাঁড়িয়ে ইজরায়েলের রাষ্ট্রদূত গিলাদ এরদান বলেছিলেন, নিরাপত্তা কাউন্সিল কোনও সময় হামাসের নিন্দা করে না। গত ৭ অক্টোবর ওরা যা করেছে কোনও দিন তার উল্লেখ করা হয় না। যা খুবই লজ্জার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *