ঘরের মাঠে শেষ ম্যাচ হয়তো খেলে ফেললেন মেসি, অবসরের ইঙ্গিত ‘সেলিব্রেশনের’ ধরণে

শুক্রবার রাতে দেশের জার্সিতে ঘরের মাঠে হয়তো শেষ ম্যাচটি খেলে ফেললেন লিওনেল মেসি। তাঁর শরীরি ভাষা, উচ্ছ্বাস, আবেগ যেন বারবার ব্যক্ত করল দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার তৃপ্তি। আর এভাবেই অনুরাগীদের বুঝিয়ে দিতে চাইলেন, এবার বিদায় নেওয়ার পালা।

আর্জেন্টিনা দলের কোচ লিওনেল স্কালোনি আগেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, শুক্রবার রাতেই হয়তো দেশের মাটিতে শেষ লড়াইয়ে নামবেন এলএম টেন। ভেনিজুয়েলাকে ৩-০ গোলে হারিয়ে গ্যালারির দিকে তাকিয়ে মেসির সেলিব্রেশনে কার্যত সে ছবিই ফুটে উঠল। ঘরের মাঠের ভক্তদের বুক ভরা ভালবাসা যেন গায়ে মেখে নিতে চাইছিলেন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার। যদিও দেশের হয়ে অবসরের বিষয়ে তিনি সরাসরি কিছু বলেননি। শুধু বলে দেন, আপাতত ইকুয়েডরের বিরুদ্ধে খেলার কথা ভাবছেন। এ ব্যাপারে হয়তো বিশ্বকাপের পরই যা ঘোষণা করার করবেন।

বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে  ভেনিজুয়েলাকে হারিয়ে টানা ৩০ ম্যাচে অপরাজিত থাকার রেকর্ড গড়ল আর্জেন্টিনা। শুক্রবার রাতে নিকোলাস গঞ্জালেস ও ডি মারিয়ার গোলে এগিয়ে যায় দল। দুটি গোলেরই নেপথ্যে ছিলেন রডরিগো ডি পল। ম্যাচের ৮২ মিনিটে বিপক্ষের কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা মেসি। ফ্রি-কিক থেকে গোল করার আরও সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। যদিও তা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন। তবে দ্রুততম ফুটবলার হিসেবে কেরিয়ারের ৭৬০ তম গোলটি করে নজির গড়েল মেসি।

কাতার বিশ্বকাপে খেলার জন্য ইতিমধ্যেই যোগ্যতা অর্জন করে ফেলেছে মারাদোনার দেশ। এখন গ্রুপ শীর্ষে পৌঁছনোর লড়াই। আবার গ্রুপে সবার উপরে থাকা ব্রাজিলের থেকে চার পয়েন্ট পিছিয়ে আর্জেন্টিনা। হাতে বাকি দুটি ম্যাচ। সম্ভবত দু’টি ম্যাচেই খেলবেন মেসি। কিন্তু বিশ্বকাপে তাঁকে দেখা যাবে কি না, তা এখনও নিশ্চিত নয়। শুধু মেসি নন, তাঁর সতীর্থ অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়াও কেরিয়ার সায়াহ্নে পৌঁছেছেন। ফলে আসন্ন বিশ্বকাপে এই দুই তারকাকে দেখা যাবে কি না, তা কোটি টাকার প্রশ্ন। গত বছর কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়ন হয়ে দেশের জার্সিতে ট্রফি খরা কাটিয়েছিলেন মেসি। এবার এলএম টেনকে বিশ্বকাপের মঞ্চে দেখতে মুখিয়ে রয়েছেন তাঁর অগণিত ভক্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 1 =