হ্যাপি মাদার্স ডে! মায়ের জন্য আজ আপনি রাঁধুন বিশেষ পদ

আমি যদি দুষ্টুমি ক’রে
চাঁপার গাছে চাঁপা হয়ে ফুটি,
ভোরের বেলা মা গো, ডালের ’পরে
কচি পাতায় করি লুটোপুটি,
তবে তুমি আমার কাছে হারো,
তখন কি মা চিনতে আমায় পারো।
তুমি ডাকো, ‘খোকা কোথায় ওরে।’
লুকোচুরি– রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

 

মা শব্দটা ছোট, খুব সহজ। শিশুর কথা বলতে শিখলে প্রথমেই শেখে এই ডাক।এই শব্দের গভীরতা আর ব্যপ্তি জীবন দিয়েই উপলব্ধি করতে হয়। ৮ মে মাদার্স ডে। এই দিনে মাকে বরং নিজের হাতে কিছু করে খাওয়ান। মায়ের সারা বছর গরম, ঠান্ডা, শরীর খারাপ নিয়ে পরিবারের সকলের সামনে খাবার ধরেন। ছুটি তাদের হয় না।

আর সন্তান যদি মায়ের জন্য কোনও কিছু রান্না করে, সেই খুশি তাঁর কাছে হবে প্রশ্নাতীত।

ভাবছেন কী বানাবেন?

মায়ের পছন্দের যা ইচ্ছেই করুন। তবে এখানে দিলাম পনির মাখানির রেসিপি। বয়স হলে অনেক সময় মায়েরা মাছ মাংস পছন্দ করেন না। অনেকে নিরামিষ খান। তাই পনির রাঁধলে আশা করি কারও অসুবিধে হবে না। আর একটা কথা, সন্তান যেমন সন্তানই ছেলে বা মেয়ে যাই হোক। তাই আপনি ছেলে বা মেয়ে সেটা মাথায় না রেখেই রাঁধুন।

পনির মাখানি

উপকরণ- পনির, মাখন, আদা ও রসুন বাটা, টমেটো পিউরি, নুন, চিনি, কাজুবাদাম বাটা, গরম মশলা

কীভাবে করবেন- সাদা তেল গরম করুন। তাতে দিন মাখন। মাখন গললে দিয়ে দিন আদা ও রসুন বাটা। হাল্কা স্যতে করে নিন। দিয়ে দিন টমেটো পিউরি।

৫-৭ মিনিট মিডিয়াম আঁচে হতে দিন। তারপর দিন কাজুবাদাম বাটা। ভাল করে মশলাটা হাল্কা থেকে মিডিয়াম আঁচে কষে নিন। তেল ছাড়তে শুরু করলে দিন কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো, স্বাদমতো চিনি, নুন। গ্রেভিটা আরও কিছুক্ষণ হতে দিন।

অন্য একটা পাত্রে এক টুকরো মাখন নিন। মাখন গলে গেলে কাটা পনিরের টুকরো দিয়ে দিন। নুন ও কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো দিয়ে হাল্কা ভেজে নিন। তারপর অন্য কড়াইতে যে গ্রেভি হচ্ছিল তাতে পনিরগুলো দিয়ে, সামান্য জল দিয়ে ফুটতে দিন। ওপর থেকে ছড়িয়ে দিন গরম মশলা। ঢাকা দিয়ে মৃদু আঁচে ৫-৭ মিনিট হতে দিন। ওপর থেকে তেল ছাড়লে কশৌরি মেথি ছড়িয়ে নামিয়ে নিন।

এর সঙ্গে আলু পুরি, লুচি, পরোটা, চাপাটি, রুটি কিম্বা পোলাও, রাইস আপনার মা যেটা ভালবাসে সেটাই দিতে পারেন।

আর শেষপাতে!

না মিষ্টি নয়, মাকে ফিরিয়ে দিন ছোটবেলা। কীভাবে!চকোলেট দিয়ে।

চকোলেট পুডিং

লাগবে-ডার্ক চকোলেট, দুধ, চিনি, কর্নফ্লাওয়ার

কীভাবে করবেন- একটি পাত্রে সামান্য দুধ নিয়ে তাতে চকলেট বার ফেলে মিডিয়াম আঁচে রাখুন চকলেট গলে যাবে। তাতে দিন সামান্য চিনি। তারপর দিন ইষদুষ্ণ দুধ। দুধ ফুটতে শুরু করার সময় ঠান্ডা দুধে এক থেকে ২ চামচ কর্নফ্লাওয়ার গুলে নিন। সেটা দুধে মিশিয়ে ক্রমাগত নাড়তে থাকুন। চকলেটের মিশ্রন ঘন হলে গ্যাস বন্ধ করে ঠান্ডা হতে দিন। একটু ঠান্ডা হলে কাচের সুন্দর কোনও ছোট বাটিতে ঢেলে ফ্রিজে রাখুন ঘণ্টা খানেক। শেষপাতে এটাই দিন মাকে। চকলেট পুডিং খেয়ে মা খুশি হতে বাধ্য।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 + two =