কাশ্মীরকে নতুন চেহারা দিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী

জম্মু ও কাশ্মীরে ৩২ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর সেই সঙ্গে তাঁর মুখে শোনা গেল ৩৭০ ধারা বিলুপ্তির প্রসঙ্গ। তিনি বললেন, ‘বোমা বিস্ফোরণের যুগকে অপসারিত করেছে উন্নয়ন। আজ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলি জম্মু ও কাশ্মীরে বিনিয়োগে আগ্রহী।’ সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে এমনটাই জানা যাচ্ছে। হিমালয়ের দুর্গম পীর পঞ্জাল পর্বতশ্রেণি ফুঁড়ে তৈরি করা দেশের দীর্ঘতম রেলপথ-সুড়ঙ্গের এদিন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মঙ্গলবার ভার্চুয়াল মাধ্যমে পতাকা নাড়িয়ে শ্রীনগর-উধমপুর-বারামুলা রেল লিঙ্ক প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী।

এদিন জম্মুর মৌলানা আজাদ স্টেডিয়ামে বিরাট সংখ্যক জনতার সামনে মোদিকে বলতে শোনা যায়, ‘বিজেপি মানুষের স্বপ্নপূরণ করছে। যে স্বপ্ন ৭০ বছরেও পূর্ণ হয়নি। মোদি গ্যারান্টিই শেষ কথা। আর সেই গ্যারান্টি বলছে, সকলেরই স্বপ্ন পূর্ণ হবে। এতকাল কাশ্মীর থেকে কেবল দুঃখের সংবাদই শোনা যেত। বোমা বিস্ফোরণ, অপহরণ, বিচ্ছিন্নতাবাদখ আজ শিক্ষা, সংযোগ ও উন্নয়ন সেগুলিকে অপসারিত করেছে। এবার জম্মু ও কাশ্মীর উন্নতি ও উন্নয়নের পথে।’

রেলের তরফে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রী মোদি মঙ্গলবার জম্মুতে উপস্থিত ছিলেন। তিনি দু’টি বিদ্যুৎচালিত ট্রেনকে একযোগে ‘ফ্ল্যাগ অফ’ করেছেন। একটি শ্রীনগর থেকে সাঙ্গলদান পর্যন্ত নীচের দিকে এবং অন্যটি সাঙ্গলদান থেকে শ্রীনগর পর্যন্ত উপরের দিক থেকে।’

রেলের তরফে আরও জানানো হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার ৪৮.১ কিলোমিটার দীর্ঘ বানিহাল-খারি-সাম্বার-সাঙ্গলদান অংশেরও উদ্বোধন করেন। এর মধ্যেই রয়েছে দেশের দীর্ঘতম রেল-সুড়ঙ্গ। যা ১২.৭৭ কিলোমিটার দীর্ঘ। টি-৫০ নামে পরিচিত এই রেল-সুড়ঙ্গ খারি-সাম্বার অংশের মধ্যে পড়ে।

এদিন শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিমান, সড়ক, রেল বিভিন্ন খাতে ৩২ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের সূচনা করলেন মোদি। কোনওটার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, কোনওটার উদ্বোধন করতে দেখা গেল তাঁকে। আর সেই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য, ‘কাশ্মীর নতুন একটা রূপ নিচ্ছে। দেশের বাকি অংশ ও জম্মু ও কাশ্মীরের মধ্যে দেওয়াল গড়ে দাঁড়িয়ে ছিল ৩৭০ ধারা। বিজেপি সেই দেওয়ালটা সরিয়ে দিয়েছে। এই ধারার অবলুপ্তি ঘটানোই আমাদের আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে বিজেপির জন্য ৩৭০ ও এনডিএ জোটের জন্য ৪০০ আসনে জয়ের।’

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *