‘আক্রান্ত’ ইডির বিরুদ্ধেই এফআইআর! তদন্তে স্থগিতাদেশ দিয়ে রাজ্যের কাছে হলফনামা চাইল হাইকোর্ট

রেশন ‘দুর্নীতি’কাণ্ডে তল্লাশি চালাতে সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখের বাড়িতে অভিযান চালাতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছিল ইডি। তিন জন ইডি আধিকারিককে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল ওই ঘটনার পর। অথচ সন্দেশখালির ঘটনায় ইডির বিরুদ্ধেই এফআইআর দায়ের করা হয়েছিল। এবার এ নিয়ে হাইকোর্টের প্রশ্নের মুখে পুলিশের ভূমিকা। হাইকোর্টের নির্দেশ, ইডির বিরুদ্ধে করা এফআইআর নিয়ে হলফনামা দিতে হবে রাজ্যকে। পাশাপাশি বৃহস্পতিবার এফআইআর-এর ভিত্তিতে তদন্তে স্থগিতাদেশ দিয়েছে আদালত। রাজ্যের কাছে এই ঘটনার কেস ডায়েরি তলব করা হয়েছে। বিচারপতি রাজাশেখর মান্থার নির্দেশ, আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত ইডির বিরুদ্ধে করা এফআইআর নিয়ে কোনও তদন্ত করতে পারবে না পুলিশ।
সন্দেশখালির ঘটনা নিয়ে একই দিনে তিনটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছিল স্থানীয় থানায়। তার মধ্যে দু’টি এফআইআরের বয়ানে মিল নেই। বিচারপতির প্রশ্ন, এফআইআর নেওয়ার আগে পুলিশ কি ন্যূনতম অনুসন্ধান করেছিল? তাঁর পর্যবেক্ষণ, ‘ধরুন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর উপর আক্রমণ হয়েছে। ন্যূনতম অনুসন্ধান না করেই কি সঙ্গে সঙ্গে এফআইআর লিখতে বসে যাবেন? পুলিশের দুটো অভিযোগ নেওয়ার প্রক্রিয়ার মধ্যে দ্বন্দ্ব তৈরি হচ্ছে। একটি ঘটনার সঙ্গে অন্যটি মেলানো যাচ্ছে না।’
প্রসঙ্গত দিন কয়েক আগেই রেশন ‘দুর্নীতি’কাণ্ডে তল্লাশি চালাতে সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখের বাড়িতে গিয়েছিল ইডি। কিন্তু শাহজাহানকে পাওয়া যায়নি। উল্টে ওই বাড়ির সামনে বিক্ষোভের মুখে পড়েন কেন্দ্রীয় আধিকারিকেরা। আক্রান্ত হন।
এদিন বিচারপতি মান্থা জানতে চান, ইডি আধিকারিকেরা কি শাহজাহানের বাড়িতে ঢুকতে পেরেছিলেন? ইডি জানায়, অনেক চেষ্টা করেও বাড়িতে প্রবেশ করতে পারেননি। অনেক বার শাহজাহানকে ফোন করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর মোবাইল ব্যস্ত ছিল। ইডির অনুমান, ওই সময়েই তিনি তাঁর অনুগামীদের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করছিলেন। তাঁর ফোন ঘেঁটে জানা গিয়েছে, অন্তত ২৮ বার ফোন করা হয়েছে ওই সময়ের মধ্যে। অথচ, ফোনের টাওয়ার লোকেশন অনুযায়ী, শাহজাহান সেই সময়ে বাড়িতেই ছিলেন। ইডির দাবি, প্রায় তিন হাজার লোক বাড়ির সামনে জড়ো করেছিলেন তৃণমূল নেতা। সবটাই ছিল পূর্ব পরিকল্পিত।
যদিও রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল (এজি) কিশোর দত্ত এবং আইনজীবী দেবাশিস রায় জানান, সুপ্রিম কোর্টের ললিতা কুমারী রায় মোতাবেক অভিযোগ পেয়ে পুলিশ এফআইআর গ্রহণ করেছে।

উল্লেখ্য, সন্দেশখালির ঘটনা নিয়ে প্রথম দায়ের হওয়া এফআইআরে বলা হয়েছিল, ইডি শাহজাহানের বাড়ির সামনে যাওয়ায় গোলমাল হচ্ছে। মহিলা এবং শিশুদের আক্রমণ করছেন ইডি আধিকারিকেরা। টাকাও চুরি করে নিচ্ছেন। তবে সে দিন দুপুরের দ্বিতীয় এফআইআরে অন্য কথা বলা হয়েছে। বিচারপতির মন্তব্য, ‘প্রথমে একটি বয়ানে পুলিশ এফআইআর নিল। ওসি স্বাক্ষর করে দিলেন। আবার দুপুরে আর এক জন গিয়ে থানায় উল্টো ঘটনা বললেন। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতেও এফআইআর করা হল। আর তাতেও ওসি স্বাক্ষর করে দিলেন!’

বিচারপতির পর্যবেক্ষণ, ‘‘পুলিশের এক বারও মনে হল না, একটু আগে এই একই ঘটনা নিয়ে এফআইআর গ্রহণ করা হয়েছে? আগে যিনি এসেছিলেন তিনি অন্য কথা বলেছেন! তখন দ্বিতীয় জনকে পুলিশ তো সে কথা বলবে! তা না করে চোখ বন্ধ করে ওসি স্বাক্ষর করে দিলেন! পুলিশের এটা কী ধরনের বোকামি?’’

বিচারপতি জানান, এ ক্ষেত্রে কোনও চালাকি হয়ে থাকতে পারে। তাই কোন এফআইআর আগে হয়েছে এবং কোনটি পরে হয়েছে, তা বোঝার জন্য তিনি এফআইআরের কপি সেন্ট্রাল ফরেনসিক ল্যাবরেটরিতে পাঠাতে পারেন বলে জানিয়েছেন। আগামী ২২ জানুয়ারি এই মামলার পরবর্তী শুনানি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *