সামাজিক মাধ্যমে তীর্যক মন্তব্যের দাবি, বিজেপি নেতার বাড়ি ঘেরাও, বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদন, বাঁকুড়া: সন্দেশখালি কাণ্ডের প্রেক্ষিতে লক্ষ্মীর ভান্ডারের বরাদ্দ বৃদ্ধি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে তীর্যক মন্তব্য করায় এক বিজেপি নেতার বাড়ি ঘেরাও করে ওই বিজেপি নেতাকে গ্রেপ্তারের দাবি তুললেন মহিলারা। পাত্রসায়েরের এই ঘটনাকে ঘিরে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর। তৃণমূলের অঙ্গুলিহেলনেই মহিলারা এমন কাজ করেছেন বলে দাবি করে স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের পালটা হুঁশিয়ারি দিয়েছে বিজেপি।
বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার দুপুরে সোনামুখী বিধানসভার চার নম্বরের মণ্ডলের সাধারণ সম্পাদক হরিসাধন লোহার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে সন্দেশখালির ঘটনা ও লক্ষ্মীর ভান্ডারের বরাদ্দ বৃদ্ধি নিয়ে রাজ্যের শাসকদলকে বিঁধে একাধিক পোস্ট করেন। ঘটনার কথা জানাজানি হতেই মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই বিজেপি নেতার পাত্রসায়েরের বাড়িতে হাজির হন প্রায় ৪০ থেকে ৫০ জন মহিলা। নিজেদের স্থানীয় স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যা হিসাবে দাবি করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।
তাঁদের অভিযোগ, হরিসাধন লোহার সামাজিক মাধ্যমে ওই পোস্টগুলির মাধ্যমে মহিলাদের প্রতি কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেছেন। এই ঘটনায় হরিসাধন লোহারের গ্রেপ্তারির দাবিও জানান বিক্ষোভকারী মহিলারা। বেশ কিছুক্ষণ ধরে হরিসাধন লোহারের বাড়ি ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখান মহিলারা। পরে খবর পেয়ে তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পাত্রসায়ের থানার পুলিশ এবং গোটা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
যদিও হরিসাধন লোহারের সামাজিক মাধ্যমের পোস্ট কুরুচিকর বলে মানতে নারাজ বিজেপি নেতৃত্ব। তাঁদের পালটা অভিযোগ, প্রতিবাদের কণ্ঠরোধ করতে তৃণমূল মহিলাদের উসকে দিয়ে এই কাজ করিয়েছে। বিজেপির তরফে পালটা হুঁশিয়ারি দিয়ে জানানো হয়, এলাকার তৃণমূলকর্মীরা যে ভাবে লুঠতরাজ চালিয়েছে, তাতে সেই দিন বেশি দূরে নয়, যেদিন পুরুষ-মহিলা নির্বিশেষে মানুষ তাঁদের তাড়া করবেন। সেদিন যেন তৃণমূল নেতাদের শাহজানের মতো পালিয়ে যেতে না হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *