সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য, শেন ওয়ার্নের মৃত্যু তদন্তে মিলল রক্তের দাগ

শেন ওয়ার্নের আকস্মিক মৃত্যু যেন এখনও মানতে পারছেন না তাঁর বন্ধু, সতীর্থরা। বাবা আর নেই, এ কথা এখনও অবিশ্বাস্য লাগছে অজি লেগ স্পিনারের সন্তানদের। তাঁদের মনে হচ্ছে, এই হয়তো বাবা এসে দরজায় দাঁড়িয়ে ডাক দেবেন। কিন্তু মাত্র ৫২ বছর বয়সে তিনি পরলোক গমন করেছেন, এটাই সত্যি। তবে তাঁকে সমাধিস্ত করার আগে তাঁর মৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখতে হচ্ছে ময়নাতদন্ত। আর এরই মধ্যে নতুন তথ্য প্রকাশ্যে আনল থাই পুলিশ। জানানো হল, ওয়ার্নের ঘরে রক্তের দাগ পাওয়া গিয়েছে।

থাইল্যান্ডের কো সামুইয়ের ভিলায় বন্ধুদের সঙ্গে ছিলেন ওয়ার্ন। শুক্রবার রাতে তিনি খেতে আসছেন না দেখে ডাকতে যান এক বন্ধু। তখনই কিংবদন্তির ঘরে ঢুকে দেখেন, অচেতন অবস্থায় পড়ে রয়েছেন তিনি। পরে তাঁর এক বন্ধুই জানান, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হয়েছেন ওয়ার্ন। শনিবার থাই পুলিশের তরফে অবশ্য নয়া রিপোর্ট সামনে এনে জানানো হয়েছে, মৃত্যুর আগে তিনি বুকে ব্যথা অনুভব করেছিলেন। অনেক আগে থেকেই হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন ওয়ার্ন। সঙ্গে অ্যাস্থমার সমস্যাও ছিল। কো সামুইয়ের বো ফুট থানার পুলিশ জানায়, হার্টের সমস্যার জন্য নাকি ডাক্তারও দেখাচ্ছিলেন ওয়ার্ন। তাঁর শরীর থেকে কোনও মাদক দ্রব্য মেলেনি বলেও নিশ্চিত করা হয়েছে।

তবে দ্য ব্যাংকক পোস্টের খবর অনুযায়ী, যে ঘরে ওয়ার্ন পড়েছিলেন, সেখানকার মেঝেয় রক্তের দাগ পাওয়া গিয়েছে। এমনকী তাঁর স্নানের টাওয়েল ও বালিশেও মিলেছে রক্তের ছিটে। কোথা থেকে এল রক্ত? জানা গিয়েছে, ক্রিকেটারের সর্দি-কাশি ছিল। কাশতে গিয়েই রক্ত বেরিয়েছে।

এদিকে, ওয়ার্নের ম্যানেজার জেমস এরস্কিন রবিবার জানান, কিংবদন্তি তারকার অকাল মৃত্যুতে এখনও বিস্মিত তাঁর সন্তানরা। ইতিমধ্যেই তিন সন্তান জ্যাকসন, সামার ও ব্রুকের সঙ্গে কথা বলেছেন জেমস। গোটা বিষয়টি তাঁদের কাছে দুঃস্বপ্নের মতোই মনে হচ্ছে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × 4 =