ইস্কো কারখানার গেটে শ্রমিকদের কাছে গিয়ে ভোট প্রচারে অগ্নিমিত্রা, রবীন্দ্রভবনে শত্রুঘ্ন সিনহা

আসানসোল : কারখানার শ্রমিকদের কাছে গিয়ে ভোট দেওয়ার আবেদন করলেন বিজেপি প্রার্থী অগ্নিমিত্রা পাল। বৃহস্পতিবার, বার্ণপুর ইস্কো কারখানার গেটে তিনি সকাল সকাল পৌঁছে যান। ইস্পাত কারখানার শ্রমিকদের লিফলেট বিলি করেন। তিনি জানান, তাঁর বাবা এই কারখানার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ইস্কো হাসপাতালের ডাক্তার ছিলেন তিনি। শ্রমিক আবাসন এলাকাতেই তাঁর বেড়ে ওঠা। ঘরের মেয়ে হয়ে তাই তিনি বার্নপুর ইস্কো কারখানায় ভোট প্রচারে এসেছেন। কারখানা রুগ্ন হয়ে বন্ধ হয়ে যাওয়ার থেকে কর্পোরেট করে দেওয়া বা বেসকারিকরণের পক্ষে তিনি এদিন কথা বলেন।

অপরদিকে অভিনেত্রী তথা বিজেপি নেত্রী পাপিয়া অধিকারির পরিচালনায় পথ নাটক শুরু হয়ে আসানসোলে। আসানসোলের রাস্তায় রাস্তায় দেখা মিলছে বিজেপির পথ নাটিকা। ‘এই বঙ্গে দেখবো কত রঙ্গে’-নাটক মঞ্চস্থ করছেন মুক্তি নাট্যসংস্থা। নাটকে উঠে এসেছে কামদুনি থেকে রামপুরহাটের ঘটনার প্রতিবাদ। কয়লা, বালি, গরু পাচার ও তোলাবাজির প্রসঙ্গ। নাটকে দেখানো হয়েছে আসানসোলবাসী ‘খামোশ’ না থেকে ছুঁড়ে ফেলছে মুম্বাই থেকে আসা তৃণমূল তারকা প্রার্থী শত্রুঘ্ন সিনহাকে। পাপিয়া অধিকারির দাবি গণনাট্য সংঘের কর্মী ছিলেন তিনি। তাঁর মায়ের কাছ থেকেই নাটক সেখা। আজকের দিনে সব থেকে বড় সোশাল মিডিয়া, পথ নাটিকা। দিন আনা দিনখাওয়া মানুষ থেকে ভিক্ষুকরা পর্যন্ত নাটক দেখছেন রাস্তায় দাঁড়িয়ে। তাঁদেরকে বার্তা দিতে পারাটাই মূল উদ্দেশ্য। অগ্নিমিত্রা পাল বলেন, কোলিয়ারি এলাকায় শত্রুঘ্ন সিনহার কালাপাথর বা কালিয়া দেখানো হচ্ছে প্রোজেক্টারে।

কিন্তু, তাতে কাজের কাজ কিছুই হবে না। সিনেমার শত্রুঘ্ন কয়লাখনির হিরো হলেও বাস্তবে তৃণমূল দলটাই কয়লা চুরির সঙ্গে যুক্ত। তাই সিনেমা দেখিয়ে কোনও লাভ নেই। বৃহস্পতিবার, আসানসোল রবীন্দ্রভবনে তৃণমূল প্রার্থী শত্রুঘ্ন সিনহার সমর্থনে শিক্ষক সংগঠনের একটি সভা হয়। এই সভাতে শত্রুঘ্ন ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী মলয় ঘটক, জয়প্রকাশ মিশ্র, মেয়র বিধান উপাধ্যায় সহ শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এই সভায় বক্তারা তৃণমূল প্রার্থীকে জেতাবার আবেদন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three − three =