বারবার ফোনে মাকে না-পেয়ে সন্দেহ মেয়ের,উদ্ধার প্রৌঢ়ার দেহ

দমদমের গোরা বাজারে একাকী প্রৌঢ়ার রহস্যমৃত্যু। মৃতার নাম তারা শর্মা (৬৮)। বুধবার তাঁর দেহ উদ্ধার হয় বাড়ি থেকে। মৃতার পরিবারের অভিযোগ, তাঁর একা থাকার সুযোগকেই কাজে লাগিয়ে কেউ বা কারা খুন করেছে।পুলিশ সূত্রে খবর, তারাদেবীর মাথায় ভারী কিছুর আঘাত করা হয়েছে। পুলিশের প্রাথমিকভাবে অনুমান সেই আঘাতের কারণেই মৃত্যু হয়েছে। যার জেরে খুনের সন্দেহ উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। তবে, কেন কেউ খুন করবে, বা কী ঘটেছিল তা এখনও স্পষ্ট নয়।

স্থানীয় সূত্রে খবর, বাড়িতে একাই থাকতেন তারাদেবী। কয়েক মাস আগে স্বামী মারা গিয়েছেন। একমাত্র মেয়ের বিয়ে হয়ে গিয়েছে। এদিকে মায়ের খবর নিতে বারবার ফোন করছিলেন মেয়ে। তবে ফোন না ধরায় সন্দেহ হয়। এরপরই সোজা চলে আসেন বাড়িতে। তখনই সামনে আসে প্রকৃত ঘটনা।

শর্মা পরিবার সূত্রে খবর, মাস ছয়েক আগে তাঁর স্বামী অশোক শর্মাও মারা যান। অশোকবাবু একটি বহুজাতিক সংস্থায় উচ্চপদে কর্মরত ছিলেন। এদিকে স্থানীয় বাসিন্দারা জানাচ্ছেন, মঙ্গলবার সকালেও এলাকায় দেখা গিয়েছিল ওই বৃদ্ধাকে। এরপর তাঁকে আর দেখা যায়নি। এদিকে বৃদ্ধার মেয়ে বারবার ফোন করার পরও যোগাযোগ করতে না পারায় বাড়িতে যান। অনেকবার দরজায় কড়া নাড়েন। এরপরেও সাড়া না দেওয়ায় খবর দেওয়া হয় দমদম থানায়। পুলিশ এসে দরজা ভেঙে দেহ উদ্ধার করে। মৃতার আত্মীয় জানান, ‘ওনার মেয়ে ফোন করেছিল। মা কে ফোনে পায়নি বলে বাড়িতে যিনি কাজ করেন তাঁকে ফোন করেন। তিনি জানান যে বৃদ্ধা দরজা খুলছেন না অনেকক্ষণ ধরে। এরপর ওনার মেয়ে দমদম থানায় খবর দেয়। পুলিশ এসে দেখে ওনার মাথায় আঘাত রয়েছে। ঘিলু বেরিয়ে এসেছে। তবে কী হয়েছে ঠিক বলতে পারব না।’

এদিকে পুলিশ সূত্রে খবর, তারা দেবীর মাথায় ভারী কোনও বস্তু দিয়ে আঘাত করার কারণেই সম্ভবত মৃত্যু  হয়েছে। তবে ঠিক কী কারণে খুন করা হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ঘটনার তদন্ত প্রক্রিয়া শুরু করেছে দমদম থানার পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *