কালিম্পংয়ে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনার কবলে দক্ষিণেশ্বরের একটি পরিবার, মৃত্যু ছেলের

বাড়ির গাড়ি নিয়ে হইহই করে দক্ষিণেশ্বর থেকে পাহাড়ের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিল চক্রবর্তী পরিবার। কালিম্পংয়ে যাওয়ার পথে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল বাড়ির ছেলে ইন্দ্রাশিস চক্রবর্তীর। দুর্ঘটনায় আহত পরিবারের অন্য সদস্যরাও।
বৃহস্পতিবার সকালে মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বাগডোগরার কাছে গোসাইপুরের এশিয়ান হাইওয়ের ২ নম্বর জাতীয় সড়কে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়েছে চক্রবর্তী পরিবারের সদস্য এমবিএ-র ছাত্র ইন্দ্রাশিসের। গাড়ির চালক-সহ আহত ছয়জনের মধ্যে দু’জনের আঘাত গুরুতর। এদিন সকালে ইন্দ্রাশিসের মৃত্যুর খবর পৌঁছতেই দক্ষিণেশ্বর ডোমেস্টিক এলাকায় নেমে আসে শোকের ছায়া।
জানা গিয়েছে, নিজেদের বোলেরো গাড়িতে চেপে দক্ষিণেশ্বর থেকে কালিম্পঙয়ের চুইখিমে সপরিবারে যাচ্ছিলেন তাঁরা। বিহার থেকে যাত্রীবাহী দূরপাল্লার একটি বাস বাগডোগরা পেরিয়ে গোসাইপুর সংলগ্ন রাস্তায় আসার পরে আচমকা দাঁড়িয়ে যায়। তখন নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বোলেরো গাড়িটি সজোরে বাসের পিছনে ধাক্কা মারে। ধাক্কার জেরে বোলেরো গাড়িটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ইন্দ্রাশিস চক্রবর্তীর। দুর্ঘটনার কবলে পরা পরিবারের কর্তা ইন্দ্রনীল চক্রবর্তী জানা, দুর্ঘটনায় তিনি ছেলেকে হারিয়েছেন। স্ত্রীর অবস্থা সংকটজনক।
দুর্ঘটনার খবর পৌঁছতেই শোকস্তব্ধ হয়ে পড়ে দক্ষিণেশ্বর ডোমেস্টিক এলাকা। চক্রবর্তী পরিবারের আত্মীয় যুবক রোহন সাহা জানান, বুধবার রাতে পরিবারের সকলে হৈ-হুল্লোড় করে কালিম্পয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিল। এদিন সকাল সাড়ে ছ’টা কিংবা পৌনে সাতটা নাগাদ গাড়ি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। ঘটনায় দাদার মৃত্যু হয়েছে। জেঠিমার অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতরা সকলেই উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *